1. admin@bangla24bdnews.com : b24bdnews :
  2. tanvirahmedtonmoy1987@gmail.com : shuvo khan : shuvo khan
রবিবার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ০২:৫১ অপরাহ্ন

আজ ভাষা সৈনিক শামসুজ্জোহার ৩৩তম মৃত্যুবার্ষিকী

স্টাফ রিপোর্টার (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ):
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৮০ জন সংবাদটি পড়েছেন

আজ ২০ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ট সহচর, মহান স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম সংগঠক, ভাষা সৈনিক ও স্বাধীনতা পদকে(মরোণত্তর) ভুষিত প্রয়াত জননেতা একেএম শামসুজ্জোহার ৩৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি ছিলেন একাধারে আওয়ামীলীগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, গণ পরিষদের সদস্য ও স্বাধীনতা পরবর্তী জাতীয় সংসদ সদস্য। মরহুম একেএম সামসুজ্জোহা এদেশের অন্যতম ঐহিত্যবাহী ওসমান পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন। তার পিতা মরহুম জননেতা খান সাহেব ওসমান আলীও ছিলেন একজন ভাষা সৈনিক, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং সাবেক এমএনএ। ঐতিহ্যবাহী এই পরিবারের আদি নিবাস নারায়ণগঞ্জের ‘বায়তুল আমান ভবন’ আজও কালের স্বাক্ষী হয়ে দাড়িঁয়ে আছে যেখানে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠার বীজ বপন করা হয়েছিল। মহান ভাষা আন্দোলনের সময় এই বায়তুল আমান ভবনে তৎকালীন পুলিশ প্রবেশ করে ওসমান পরিবারের সদস্যদের উপর অকথ্য নির্যাতন চালিয়েছিল। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসমাপ্ত আত্মজীবনীতেও উঠে এসেছে ভাষা আন্দোলনে এই বায়তুল আমান ভবন ও ওসমান পরিবারের ত্যাগের কথা। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতের শরনার্থী শিবিরে মরহুম সামসুজ্জোহা “ত্রানবন্ধু” নামে পরিচিত ছিলেন। প্রয়াত এই জননেতা সর্বপ্রথম ১৯৭১সালের ১৬ই ডিসেম্বর হাইকোর্টে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন এবং বাংলাদেশ বেতারের মাধ্যমে বিজয়ের বার্তা প্রচার করে দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে শান্ত থাকার আহবান জানান। ঐ দিন অপরাহ্নে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা, বঙ্গবন্ধু কন্যা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ পাক সেনাদের হাতে আটক বঙ্গবন্ধু পরিবারকে মুক্ত করতে গিয়ে পাক সেনা কর্তৃক গুলিবিদ্ধ হন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারায়ণগঞ্জের একটি সুধী সমাবেশে সেই ঘটনাটি নিজ মুখে বর্ননা করেছিলেন এবং মহান জাতীয় সংসদেও প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এই ঐতিহ্যবাহী ওসমান পরিবারের ত্যাগ-তীতিক্ষার কথা স্মরণ করে বক্তব্য দিয়ে নারায়ণগঞ্জবাসীকে গর্বিত করেছিলেন।
প্রয়াত শামসুজ্জোহার সহধর্মীনি ও রত্নগর্ভা নাগিনা জোহাও ছিলেন ভাষা সৈনিক। তাঁর বড় ছেলে প্রয়াত জননেতা ও সাবেক এমপি নাসিম ওসমান বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিশোধ নিতে ১৯৭৫ এর ১৫আগষ্ট নবপরিনীতা বধুকে রেখেই প্রতিরোধ যুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন। এরপর সামসুজ্জোহাকে গ্রেফতার করা হয় এবং ১৯৭৫সালের ৩ নভেম্বর জাতীয় ৪ নেতার হত্যাযজ্ঞের সময় তিনি ও শহীদ জাতীয় নেতা ক্যাপ্টেন মনসুর আলী একই সেলে বন্দি ছিলেন। সামসুজ্জোহা ছিলেন ঐ কলঙ্কিত ইতিহাসের অন্যতম স্বাক্ষী। প্রয়াত সামসুজ্জোহার মেঝ ছেলে বিএমইএ’র সভাপতি একেএম সেলিম ওসমান এমপি ও ছোট ছেলে একেএম শামীম ওসমান এমপি একাধিকবার জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। মহান মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় প্রয়াত সামসুজ্জোহাকে ২০১২ সালে স্বাধীনতা পদক (মরণোত্তর) এ ভুষিত করা হয়।
এদিকে দিনটি উপলক্ষ্যে মরহুমের পরিবার ও নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠন দিনভর কর্মসূচী পালন করবে। দিনব্যাপী নানা কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে পবিত্র কোরআনখানি, শোক র‌্যালী, কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও জিয়ারত, দোয়া মিলাদ ও আলোচনা সভা। মরহুমের পরিবারের পক্ষ থেকে মেঝ ছেলে সেলিম ওসমান এমপি ও ছোট ছেলে আওয়ামীলীগ নেতা একেএম শামীম ওসমান এমপি সকলকে রুহের মাগফেরাত কামনায় চাষাড়াস্থ পৈত্তিক বাড়ী হীরা মহল সংলগ্ন মসজিদে বাদ আছর আয়োজিত মিলাদ ও দোয়ায় অংশ গ্রহন করার আকুল আবেদন জানিয়েছেন।

ফেসবুকে আমরা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.bangla24bdnews.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Customized By NewsSmart