1. admin@bangla24bdnews.com : b24bdnews :
  2. robinmzamin@gmail.com : mehrab hossain provat : mehrab hossain provat
  3. maualh4013@gmail.com : md aual hosen : Md. Aual Hosen
  4. tanvirahmedtonmoy1987@gmail.com : shuvo khan : shuvo khan
রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৫৪ অপরাহ্ন

ছোটবেলায় বাড়ি যেতাম স্টিমারে করে: প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ)
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০১৯
  • ১৩৮

নদীমাতৃক বাংলাদেশে নৌপথ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ছোটবেলায় বাড়ি যেতাম স্টিমারে করে। স্টিমারে চড়ার আলাদা আনন্দ ছিল। স্টিমারে খাবারও খুব ভালো ছিল। খুব মজা করে আমরা স্টিমারে চড়তাম। এখন অনেক জায়গায় নদীগুলো দূষিত হয়ে যাচ্ছে। সেগুলা আবার দূষণমুক্ত করতে হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ। নদীই বাংলাদেশের প্রাণ। বাংলাদেশ গড়ে উঠেছে পদ্মা, মেঘনা, যমুনার অববাহিকায়। কাজেই আমাদের এখানে নৌপথ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সব থেকে কম পয়সায় আমরা পণ্য পরিবহন করতে পারি নৌপথে। মানুষের যোগাযোগ, যাতায়াত, সবকিছুর জন্যই নদী দরকার।

বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) গণভবন থেকে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের (বিএসসি) ৫টি নতুন জাহাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

দেশের নদীগুলোকে দখল-দূষণমুক্ত করতে সরকারি নানা উদ্যোগের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, নদীগুলোকে দূষণমুক্ত করতে আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি। নদীগুলো খনন করে তার প্রবাহ বৃদ্ধি করা, পানি ধারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করার বিষয়েও আমরা উদ্যোগ নিচ্ছি। এই সেক্টরে যাতে আরো উন্নয়ন হয়, সেজন্য অগ্রাধিকার দিচ্ছি।

‘আমাদের দুর্ভাগ্য যে আমাদের আগে যারা ক্ষমতায় ছিলেন, তারা এসবকে গুরুত্ব দেননি। সড়ক নির্মাণ আমরা করে যাচ্ছি। পুল-ব্রিজও আমরা করে যাচ্ছি। পাশাপাশি নৌপথটাও আমরা সচল করতে পদক্ষেপ নিচ্ছি। নৌপথ যদি আমরা ব্যবহার করতে পারি, আমাদের শিল্পায়ন থেকে শুরু করে যোগাযোগ- সব ক্ষেত্রেই বাংলাদেশ দ্রুত এগিয়ে যেতে পারবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার পরপরেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন গড়ে তুলেন। আপনারা দেখেছেন, এ যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ গড়ে তোলার সঙ্গে সঙ্গে শিপিং করপোরেশনের জন্য অনেকগুলো জাহাজও তিনি সংগ্রহ করে দিয়ে যান। কিন্তু যে শিপিং করপোরেশনটা তিনি করে দিয়ে গেছেন সেটাও একটা সময় প্রায় মুখ থুবড়ে পড়েছিল।

তিনি বলেন, খুলনায় একটি শিপ ইয়ার্ড ছিল। এই শিপ ইয়ার্ডটা আমি পেলাম মুমূর্ষ অবস্থায়। আমি শুনলাম এটি বন্ধ করে দেওয়ার জন্য একটি আন্তর্জাতিক সংস্থা পরামর্শ দিয়েছেন। তারা এ শিপ ইয়ার্ডের জন্য কোনো পয়সা দেবে না। কারণ এটি তাদের কাজে লাগবে না। তাই এটি বন্ধ করে দিতে হবে। ৯৬ সালে যখন সরকারে আমি আসি- তখন আমাকে এসব কথা শোনতে হয়েছিলো।

‘তবে আমার কথা ছিল দেশটা আমাদের। এ দেশটা আমরা গড়ে তুলবো। এ দেশকে আমরা চিনি। আমরা জানি। কীভাবে কী করবো- সেটা আমাদের সিদ্ধান্ত। তারপর শিপ ইয়ার্ডটি চালু করার জন্য আমরা উদ্যোগ নিলাম। বাংলাদেশ নেভির হাতে শিপ ইয়ার্ডটি তুলে দিয়ে বললাম- নেভিতে সব সময় জাহাজ লাগে। জাহাজ মেরামত করা লাগে। কাজেই এটা নেভি পরিচালনা করবে।’

চট্টগ্রাম ড্রাই ডক আওয়ামী লীগ সরকারের হাত ধরেই লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, চট্টগ্রাম ড্রাই ডককেও আমরা নেভির হাতে তুলে দিয়েছিলাম। এখন সেটা লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। এখানে ধীরে ধীরে ভবিষ্যতে আরও বহু যুদ্ধ জাহাজ তৈরি করতে পারবো।

বরগুনায় নতুন শিপ ইয়ার্ড তৈরি করার পরিকল্পনা রয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বরগুনা অঞ্চলে আমরা একটি শিপ ইয়ার্ড নতুনভাবে তৈরি করব। কারণ এখন পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ আমাদের কাছ থেকে জাহাজ কিনছে। আমরা বড় বড় সমুদ্রগামী জাহাজ তৈরি করে দিতে পারছি।

‘আমাদের শিপিং করপোরেশন- যেটা প্রায় পঙ্গু অবস্থায় ছিল। সেটাতে আমরা নতুনভাবে প্রাণ সঞ্চার করার জন্য নতুন নতুন শিপ তৈরি করে দিচ্ছি। আমরা সব সময় এটাই চাই যে, আমাদের এই সেক্টরটা যেন আরো শক্তিশালী হয়। কারণ বাংলাদেশ একটি নদীমাতৃক দেশ। এদেশে নৌপথটা আমাদের সচল রাখতে হবে।

পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের (বিএসসি) জাহাজ- ‘এমভি বাংলার সমৃদ্ধি’, ‘এমভি বাংলার অর্জন’, ‘এমটি বাংলার অগ্রযাত্রা’, ‘এমটি বাংলার অগ্রদূত’এবং ‘এমটি বাংলার অগ্রগতি’ উদ্বোধন করেন।

এ সময় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন ছাড়াও চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল জুলফিকার আজিজ, বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের (বিএসসি) এমডি কমডোর সুমন মাহমুদ সাব্বির, পুলিশ সুপার নুরেআলম মিনা, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমানসহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ফেসবুকে আমরা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.bangla24bdnews.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Customized By NewsSmart