1. admin@bangla24bdnews.com : b24bdnews :
  2. robinmzamin@gmail.com : mehrab hossain provat : mehrab hossain provat
  3. maualh4013@gmail.com : md aual hosen : Md. Aual Hosen
  4. tanvirahmedtonmoy1987@gmail.com : shuvo khan : shuvo khan
সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:০৯ অপরাহ্ন

ঢাকা সিটি নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিএনপি বলেছে এটি তাদের আন্দোলনের অংশ: তথ্যমন্ত্রী

রাজশাহী প্রতিনিধি (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ):
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ১০৫

তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিএনপি বলেছে এটি তাদের আন্দোলনের অংশ। বিএনপির আন্দোলন মানে মানুষ মনে করে জ্বালাও-পোড়াও এবং হাঙ্গামা। তাদের হাঙ্গামার আশঙ্কায় ভোটকেন্দ্রে যাননি ঢাকার ভোটাররা।

বৃহস্পতিবার (০৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে রাজশাহী জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আয়োজিত আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

সুন্দর ভোট আয়োজনের জন্য নির্বাচন কমিশন ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্যতা রাখে উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ঢাকা সিটি নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে বেশি ছিল। তবে হাঙ্গামার আশঙ্কায় ভোটকেন্দ্রে যাননি সব ভোটার।

তিনি বলেন, দুই সিটি নির্বাচন নিয়ে নানা রকম বিচার-বিশ্লেষণ চলছে। উপমহাদেশের মানদণ্ডে এটি একটি ভালো নির্বাচন হয়েছে। ভোটকেন্দ্রে কোনো হাঙ্গামা হয়নি। সিল মারার ঘটনা ঘটেনি। ইভিএমে ভোটগ্রহণ করার কারণে এসব বিশৃঙ্খলা ঘটেনি, কারণ ইভিএমে একজনের ভোট অন্যজনে দেয়ার সুযোগ নেই।

বিএনপি সবসময় প্রযুক্তিকে ভয় পায় উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ইভিএম নিজেই প্রতিটি রাজনৈতিক দলের এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। আঙুলের ছাপ নিয়ে সমস্যার কারণে খোদ প্রধান নির্বাচন কমিশনার ভোট দিতে গিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েছেন। কিন্তু ইভিএম নিয়ে নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে বিএনপি। আসলে বিএনপি প্রযুক্তিকে সবসময় ভয় পায়। বিএনপি সরকার ক্ষমতায় থাকার সময় বিনামূল্যে বাংলাদেশে সাবমেরিন ক্যাবল দিতে চাওয়া হয়েছিল। তখনকার প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া বলেছিলেন, ‘সাবমেরিন ক্যাবলের সঙ্গে যুক্ত হলে বাংলাদেশের সব গোপন তথ্য বাইরে চলে যাবে।’ তিনি সাবমেরিন ক্যাবলে বাংলাদেশকে যুক্ত করেননি। পরে রাষ্ট্রীয় অর্থ ব্যয় করে আমাদের সাবমেরিন ক্যাবলের সঙ্গে যুক্ত হতে হয়েছে।

দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়নের আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের এ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, দায়িত্ব পালনের সময় দলকে গুরুত্ব দিতে হবে। নিজস্ব বলয় তৈরি করা সমীচীন হবে না। মৌচাকে মধু না থাকলে কাউকে পাশে পাওয়া যায় না। ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করতে হবে।

সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন আওয়ামী লীগের রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন। তিনি আগামী মার্চ মাস থেকেই রাজশাহীর উপজেলা পর্যায়ে সম্মেলনের নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে সম্মেলনে নিজের আত্মীয়দের পদ-পদবিতে আনার ব্যাপারেও সতর্ক করেন তিনি।

এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদক রোকেয়া সুলতানা, কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য নুরুল ইসলাম, বেগম আখতার জাহান, মেরিনা জাহান, রাজশাহীর এমপি আয়েন উদ্দিন, মনসুর রহমান, এনামুল হক ও সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি আদিবা আনজুম।

সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেরাজ উদ্দিন মোল্লা। সভা পরিচালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবদুল ওয়াদুদ।

ফেসবুকে আমরা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.bangla24bdnews.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Customized By NewsSmart