1. admin@bangla24bdnews.com : b24bdnews :
  2. robinmzamin@gmail.com : mehrab hossain provat : mehrab hossain provat
  3. maualh4013@gmail.com : md aual hosen : Md. Aual Hosen
  4. tanvirahmedtonmoy1987@gmail.com : shuvo khan : shuvo khan
শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১০:০১ পূর্বাহ্ন

তিন বছরে ৯৪৫টি প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হয়েছে : আনোয়ার হোসেন

স্টাফ রিপোর্টার (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ):
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০২০
  • ১৬২

নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেনের দায়িত্ব গ্রহণের তিন বছর ছিল ২৩ জানুয়ারি। ২০১৬ সালের ২৮ ডিসেম্বর বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তিনি। ২০১৭ সালের ২৩ জানুয়ারি দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এই তিন বছরে নারায়ণগঞ্জ জেলায় উন্নয়নমূলক কাজের ব্যাপারে আনোয়ার হোসেন বলেন, চেষ্টা করেছি জেলার সর্বত্র উন্নয়নের ছোঁয়া লাগানোর জন্য। হয়তো জেলাবাসীর চাহিদা অনুযায়ী তা করতে পারিনি। তবে আশা করি আগামী দুই বছরে বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে ব্যাপক উন্নয়ন হবে জেলার বিভিন্ন উপজেলায়। দায়িত্ব গ্রহণের তিন বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে বুধবার দুপুরে জেলা পরিষদের অডিটোরিয়ামে গণমাধ্যমকে তিনি এসব কথা বলেন।
এরআগে মধ্যাহ্ন ভোজের পর কেক কেটে  তিন বছর পূর্তি উদযাপন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের এমপি নজরুল ইসলাম বাবু, জেলা প্রশাসক মো: জসিম উদ্দিন, জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম পিপিএম (বার), জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মনোয়ার হোসেন, প্রশাসনিক কর্মকর্তা কে এম রাশেদুজ্জামান, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম, কামরুল হাসান ভুইয়া, মাহমুদা মালা, জেলা পরিষদের সদস্য মজিবুর রহমান, মোস্তাফিজুর রহমান, জাহাঙ্গীর আলম, নুরজাহান বেগম, মোস্তফা হোসেন চৌধুরী, মাহবুবের রহমান, মোস্তাফিজুর রহমান মাসুমসহ জেলা পরিসদের সকল সদস্য, জেলা পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ। সাংবাদিকদের সাথে বিনিময়ের পর মনোজ্ঞ সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
আনোয়ার হোসেন আরোও জানান, নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদ গত তিন বছরে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ৭৪ কোটি ৩৪ লাখ ৩ হাজার ১৫৮ টাকা ব্যয়ে ১ হাজার ২৪৩টি প্রকল্প হাতে নিয়েছে। ইতিমধ্যে ৯৪৫টি প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাকী ২৯৮টি প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। এবং উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে ২৭ কোটি ২৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ৩৩০টি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, তিন বছরে উল্লেখ্যযোগ্য প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে, ২ কোটি ২৯ লাখ টাকা ব্যয়ে রূপগঞ্জ উপজেলায় জেলার জেলা পরিষদের ৪তলা বিশিষ্ট আধুনিক ডাকবাংলো নির্মাণ। ১ কোটি ৬৫ লাখ টাকা ব্যয়ে আড়াইহাজার উপজেলায় আলহাজ্ব শাহজালাল মিয়া উচ্চ বিদ্যালয় উন্নয়ন। ১ কোটি ২৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সদর উপজেলার দেওভোগ দারুল উলুম মাদ্রাসার আধুনিক ভবন নির্মাণ। ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে সদর উপজেলায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য আরসিসি ড্রেন নির্মাণ। ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে আড়াইহাজার উপজেলায় লাইব্রেরী নির্মাণ। ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে সদর উপজেলায় হাজী আওলাদ হোসেন উচ্চ বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ। ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে বন্দর উপজেলার হারেজ আলী এতিমখানা ও মাদ্রাসা ভবন নির্মাণ। ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে সোনারগাঁও উপজেলায় সোনারগাঁও এস.পি.স্কুলের ভবন নির্মাণ। ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে সদর উপজেলায় মর্গ্যান হাইস্কুল এন্ড কলেজের আধুনিক অডিটরিয়াম নির্মাণ। ৪৭ লাখ টাকা ব্যয়ে সদর উপজেলায় সুগন্ধা মসজিদ হতে সুগন্ধা হাউজিং এর মোড় পর্যন্ত রাস্তা আরসিসি দ্বারা উন্নয়ন। ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে সোনারগাঁও উপজেলার কাঁচপুর ইউনিয়নের ওয়াবদা বেরীবাঁধ সংলগ্ন টাটকী গংগাপুর খালের উলামা নগর মধ্যবর্তী স্থানে ব্রীজ নির্মাণ। ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে আড়াইহাজার উপজেলার বাজবী মসজিদ উন্নয়ন। ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে বন্দর উপজেলার লাঙ্গলবন্দে ২টি পাকা ঘাটলা নির্মাণ। ৩৯ লাখ ৯২ হাজার টাকা ব্যয়ে রূপগঞ্জ উপজেলার আশরাফ জুট মিলস আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান ভবন নির্মাণ।

৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে সোনারগাঁও উপজেলায় জ্যোতিবসু স্মৃতি পাঠাগার ও পর্যটন কেন্দ্র আধুনিকায়ন। ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে জেলা পরিষদের অভ্যন্তরে মাঠ আরসিসি দ্বারা উন্নয়ন ও উচু করণ। ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে সোনারগাঁও উপজেলার চিলারবাগ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ব নির্মাণ। ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে আড়াইহাজার উপজেলার সরকারী সফল আলী কলেজ সংলগ্ন রাস্তার পূর্বপার্শ্বে বড় পুকুরের গাইড ওয়াল নির্মাণ। ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে জেলা পরিষদের তৃতীয় তলায় সভা কক্ষ নির্মাণ। ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে রূপগঞ্জ উপজেলার যাত্রামুড়া টাটকী খাল হতে নাসা মিলস হয়ে বাংলাদেশ এক্সপোর্ট গেইট পর্যন্ত ড্রেন দ্বারা উন্নয়ন।

এছাড়া দু:স্থ মহিলাদের আত্মকর্মসংস্থানের লক্ষ্যে রূপগঞ্জ উপজেলায় ৮৮টি সেলাই মেশিন, দরিদ্র অসহায় মহিলাদের দারিদ্র বিমোচনে সদর উপজেলায়র ৭টি ইউনিয়নে ৬২টি সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। প্রতিবন্ধীদের আত্মকর্মসংস্থানের লক্ষ্যে সদর উপজেলার কুতুবপুর ও ফতুল্লা ইউনিয়নে ৩৫ জন, রূপগঞ্জ উপজেলায় ৪৮ জন, সোনারগাঁও উপজেলায় ৫৮ জন প্রতিবন্ধীর মধ্যে হুইল চেয়ার বিতরণ। এবং সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে দু:স্থ অসহায় প্রতিবন্ধীদের মাঝে ৪০টি হুইল চেয়ার বিতরণ করা হয়। রূপগঞ্জ উপজেলায় ৬৯৪ জন, আড়াইহাজার উপজেলায় ৬৯৪ জন, বন্দর উপজেলায় ৬৯৪জন ও সদর উজেলায় ৬৯৪ জন দরিদ্র ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে খাতা, কলম, পেন্সিল ও স্কুল ব্যাগ বিতরণ করা হয়। এছাড়া বিভিন্ন উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪৬৬ জন ছাত্র-ছাত্রীদের দাঁতের পরিচর্যা প্রশিক্ষন ও উপকরণ বিতরণ করা হয়।

তিনি বলেন, ভবিষ্যতে নারায়ণগঞ্জ শহরের প্রাণকেন্দ্র চাষাড়ায় ও ডনচেম্বারে অত্যাধুনিক মার্কেট, বন্দর উপজেলার লাঙ্গলবন্দে ও সোনারগাঁও উপজেলায় অত্যাধুনিক ডাকবাংলো নির্মাণ করা হবে। এছাড়া শিক্ষা প্রসারে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ ও প্রতিবন্ধীদের জন্য হুইল চেয়ার বিতরণ করা হবে।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আনোয়ার হোসেন বলেন, নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা পুরাতন সড়কের দুই পাশে জেলা পরিষদের জায়গা বেদখল হয়ে আছে। এগুলো উদ্ধার করে সৌন্দর্য্যবদ্ধন করা হবে। আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জনগণের স্বার্থে নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা পুররাতন সড়ক প্রসস্থকরণের জন্য জেলা পরিষদের ডাকবাংলোর কিছু অংশ যদি ভেঙ্গে দিতে হয় এতে আমাদের কোন আপত্তি নেই।

ফেসবুকে আমরা

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.bangla24bdnews.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Customized By NewsSmart