1. admin@bangla24bdnews.com : b24bdnews :
  2. robinmzamin@gmail.com : mehrab hossain provat : mehrab hossain provat
  3. maualh4013@gmail.com : md aual hosen : Md. Aual Hosen
  4. tanvirahmedtonmoy1987@gmail.com : shuvo khan : shuvo khan
বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০, ০৭:১৫ পূর্বাহ্ন

নাসিক কাউন্সিলর দিনার উপর হামলা, ছাত্রলীগের অফিস ভাংচুর, নেপথ্যে কাউন্সিলর রুহুল মোল্লা ?

স্টাফ রিপোর্টার (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ):
  • আপডেট সময় : বুধবার, ১৭ জুন, ২০২০
  • ১৯২৯

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৮নং ওয়ার্ডে সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর আয়শা আক্তার দিনার উপর হামলা ও ছাত্রলীগের কার্যলয় ভাংচুর নিয়ে ক্ষোভ উত্তেজনা উভয় শিবিরে। করোনা প্রার্দভাবের শুরু থেকে নারী কাউন্সিলর নানা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। দিন-রাত তার কার্যক্রম ৭,৮ ও ৯নং ওয়ার্ডে সাধারণ মানুষের কাছে প্রশংসিত হয়েছে। কোন সমস্যা হয়নি গত আড়াইমাসে। কিন্তু হঠাৎ করে কেন দিনার উপর হামলা? আবার রাতের আধারে ছাত্রলীগের কার্যালয়ে ঢুকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও এমপি একেএম শামীম ওসমানের ছবি ভাংচুর নিয়ে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। দুটি ঘটনা নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন আলোচনা ঢালপালা ছড়াচ্ছে এলাকায়। হামলার জন্য দিনা নামধারী ছাত্রলীগকে দায়ী করে বলছেন তাকে ও তার স্বেচ্ছাসেবক টিমের সদস্যদের ফাঁসাতে ছাত্রলীগ নিজেরাই নিজেদের কার্যালয় ভাংচুর করেছে। অন্যদিকে অফিসে ঢুকে ছবি ভাংচুরের জন্য ছাত্রলীগ কাউন্সিলর দিনা ও তার লোকজনকে দায়ী করেছেন। পাল্টাপাল্টি এমন অভিযোগ যখন, তখন নতুন মাত্রা যুক্ত হয়েছে, আর তা হলো নেপথ্যে কেউ একজন কলকাঠি নাড়ছেন। তিনি সুযোগ খুঁজছেন দীর্ঘদিন থেকে কিভাবে দিনাকে ঘায়েল করা যায়। কারণ করোনা পরিস্থিতিতে দিনার কার্যক্রম দিনাকে ব্যাপক জনপ্রিয় করে তুলেছে ওয়ার্ডের মানুষের কাছে। সবাই তাকে সাধুবাদ দিচ্ছে। কিন্তু নেপথ্যের তিনি এটা মেনে নিতে পারছেন না। তাই সুযোগ বুঝে তিনি খেলে দিয়েছেন এবং খেলছেন। এই নেপথ্যের খেলোয়াড় হিসেবে ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার দিকে অঙ্গুলি তুলেছেন ওয়ার্ডের সচেতন নাগরিকরা। তারা বলছেন, কয়েক মাস আগে দিনা ও রুহুল আমিন মোল্লার মধ্যে সংঘাতময় পরিস্থিতি তৈরী হয়েছিল। পত্রিকায় নানা লেখা লেখিও হয়েছে। এতে কোনঠাসা হয়ে পড়েন রুহুল আমিন মোল্লা। এরমধ্যে দিনার কার্যক্রম ও প্রসংশা গাত্রদাহ হয় রুহুল আমিন মোল্লার। কোন ভাবেই তিনি বিষয়টি মেনে নিতে পারছিলেন না। কারণ তার ভয় হচ্ছে দিন দিন যেভাবে দিনার জনপ্রিয়তা বাড়ছে না জানি আগামী নির্বাচনে দিনা সরাসরি কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করে বসে। তাই তাকে আগে থেকেই থামাতে হবে। যার কারণে নানাভাবে দিনার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে আসছিল রুহুল আমিন মোল্লার চেলা-চামুন্ডারা। কিন্ত সকল সমালোচনাকে পিছনে ঠেলে দিনা মানুষের সেবায় এগিয়ে যাচ্ছিলেন বাধাহীনভাবে।
এরই মধ্যে সোমবার (১৫ জুন) ওইদিন ছিল দিনার জন্মদিন। দিন শেষে রাত পৌনে ১১টার দিকে তার উপর হামলার ঘটনা ঘটে। কাউন্সিল দিনা অভিযোগ করেন, রাত সাড়ে ১০টা থেকে পৌনে ১১টার দিকে তিনি তাতখানা বউবাজার এলাকায় অবস্থিত কাউন্সিলর কার্যালয়ে তার স্বামীসহ স্বেচ্ছাসেবী টিম নিয়ে মধ্যবিত্ত পরিবারের জন্য ত্রাণ দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। হঠাৎ করে ছাত্রলীগ নামধারী রাকিব, তামিম, আলী, গনিসহ আরো প্রায় ২০ জন কাউন্সিলর কার্যালয়ে ঢুকে তাকে ও তার স্বামীসহ অন্যান্যদের মারধর করে। এবং তার হাতের আংটি এবং মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। তিনি আরো অভিযোগ করেন, হামলাকারীরা তাকে তার পরিবারের সদস্যদের প্রকাশ্যে হত্যা করার হুমকি দিয়েছে।

এদিকে ঘটনার নেপথ্যের কারণ হিসেবে জানা গেছে, কাউন্সিল দিনার এক আত্মীয়ের (খালার) ভাড়াটিয়া করোনার কারণে বাসা ভাড়া দিতে পারছেন না। ছাত্রলীগের নামধারীরা ওই ভাড়াটিয়াকে প্রায়ই অপমান অপদস্থ করছে। কাউন্সিলর দিনা তার মামার পরামর্শ অনুযায়ী ওই ভাড়াটিয়ার তিন মাসের ভাড়া মওকুফ করার ব্যবস্থা করেন। এতে ক্ষুদ্ধ হয়ে হামলা করে ছাত্রলীগ।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামরুল ফারুক জানান, কাউন্সিলর দিনার উপর হামলার ঘটনায় রাত ২টার দিকে একটা অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এদিকে হামলার পর দিনা নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমানকে ফোন দেন। কিন্তু শামীম ওসমান যুমনা টিভির টকশোতে থাকার কারণে ফোন রিসিভ করতে পারেননি। পরে মঙ্গলবার (১৬ জুন) শামীম ওসমান কাউন্সিলর দিনাকে ফোন দিয়ে শান্তনা দেন এবং বিষয়টি তিনি মিমাংশা করে দিবেন বলে জানান। তখন দিনা এমপি শামীম ওসমানের কথায় শান্ত হন।
এদিকে নেপথ্যের খেলোয়াড় যখন দেখলো দিনার বিষয়টি তো মিমাংসা হয়ে যাবে। এমপি শামীম ওসমান দায়িত্ব নিয়েছেন। ফলে হামলাকারীরা ফেঁসে যাবে। জল তো ঘোলা করতে হবে। তাই নাটকীয়ভাবে মঙ্গলবার রাতে ছাত্রলীগের কার্যালয়ে ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। এমপি শামীম ওসমানের কাছে দিনা ও তার লোকজনকে দোষী প্রমানিত করার জন্য কার্যালয়ের ভেতর বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী ও শামীম ওসমানের ছবি ভাংচুর করা হয়। সচেতন ওয়ার্ডবাসী বলছেন, দিনা ও তার লোকজনের এত দু:সাহস হয়নি যে তারা ছাত্রলীগের কার্যালয়ে ঢুকে ভাংচুর চালাবে। এটা দিনাকে ঘায়েল করতে নেপথ্যের মড়লের ইন্দনে ভাংচুর নাটক সাজানো হয়েছে। যেহেতু কাউন্সিলর দিনা বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত তাই সুযোগটি কাজে লাগিয়েছেন নেপথ্যের ওই মড়ল। ভালোভাবে তদন্ত করলে থলের বিড়াল বেরিয়ে আসবে বলে জানিয়েছেন ৮নং ওয়ার্ডের সচেতন নাগরিক সমাজ। তাছাড়া দিনা নিজেও তার উপর হামলার জন্য ‘একজন জনপ্রতিনিধি’কে দায়ী করেছেন। মজার বিষয় হলো ওই জনপ্রতিনিধি নিজের ফেসবুক আইডি থেকে হামলাকারীদের পক্ষ নিয়ে সাফাই গেয়েছেন। বিষয়টি কি দাঁড়ালো “ঠাকুর ঘরে কে রে, আমি কলা খাই না”।

ফেসবুকে রুহুল মোল্লার স্ট্যাট্যাস

এদিকে দিনা বলেছেন, নিজের স্বার্থে যারা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সাংসদ শামীম ওসমানের ছবি ভাঙচুর করতে পারে, তারা কখনও ছাত্রলীগ হতে পারে না। ছবিতে দেখুন বঙ্গবন্ধু-প্রধানমন্ত্রী ও শামীম ওসমানের ছবিগুলো সব টেবিলে রাখা এবং চেয়ার একটাও ভাঙ্গেনি। অথচ আমার সেচ্ছাসেবী টিমের সদস্যরা যদি ছাত্রলীগের কার্যালয়ে ভাঙচুরই করত তাহলে কি দৃশ্যপট এমন হতো? আমাকে ফাঁসানোর জন্য সবই সাজানো নাটক। আর এইসব নাটকের পেছনের কারিগর একজন জনপ্রতিনিধি, যিনি সব সময়ই আমাকে অপদস্থ করার চেষ্টা করেছেন। তাছাড়া নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান ভাই যেখানে নিজে আমাকে কথা দিয়েছেন বিষয়টা তিনি দেখবেন, সেখানে আমার ছেলেপুলেদের কি অতো সাহস আছে শামীম ওসমানের কথাকে অগ্রাহ্য করে ছাত্রলীগের অফিসে গিয়ে ভাঙচুর করার? আপনারাই বিষয়টি বিবেচনা করে দেখেন। কোনটা সত্য আর কোনটা সাজানো নাটক তা সবাই বুঝে।
সিদ্ধিরগঞ্জের তাঁতখানা বৌবাজার এলাকায় ছাত্রলীগের কার্যালয় ভাঙচুর এর বিষয়ে মঙ্গলবার (১৬ জুন) দিবাগত রাতে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।
কাউন্সিলর দিনা সেই জনপ্রতিনিধিকে উদ্দেশ্য করে বলেন-‘এসব নাটকের পেছনে মূল ইন্ধনদাতা কে তা আপনারা ইতিমধ্যেই ফেসবুকের মাধ্যমে জেনে গেছেন। সেই ইন্ধনদাতা বরাবরই আমাকে হেয় করার চেষ্টা করেছেন, এখন তিনিই পেছন থেকে কলকাঠি নেড়ে আমাকে এভাবে হেনস্থা করে চলেছেন। আমি বলতে চাই- ওই ইন্ধনদাতা কি এমপি শামীম ওসমানের চেয়েও বড়? সে একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে আমার পাশে না দাঁড়িয়ে কেনো আমার উপর হামলাকারীদের পক্ষ নিয়ে পেছন থেকে কলকাঠি নেড়ে যাচ্ছে? কেনো সে ফেসবুকে আমার বিরুদ্ধে পোস্ট দিয়ে আমার উপর হামলাকারীদের উস্কানি দিল, তা আপনারাই ক্ষতিয়ে দেখুন।’
উল্লেখ্য, করোনা মহামারীর গত কয়েকমাসে এলাকাবাসীর মাঝে ত্রাণ বিতারন, গর্ভবতীদের স্বাস্থী সেবা ও অভাবগ্রস্থদের আর্থিক অনুদান দিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের সংররক্ষিত কাউন্সিলর বিএনপি নেত্রী আয়শা আক্তার দিনা।

ফেসবুকে আমরা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.bangla24bdnews.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Customized By NewsSmart