1. admin@bangla24bdnews.com : b24bdnews :
  2. robinmzamin@gmail.com : mehrab hossain provat : mehrab hossain provat
  3. maualh4013@gmail.com : md aual hosen : Md. Aual Hosen
  4. tanvirahmedtonmoy1987@gmail.com : shuvo khan : shuvo khan
শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৭:১৪ অপরাহ্ন

ভালো কিছু করতে হলে লেখা-পড়া করতে হবে: ইউএনও নাহিদা বারিক

স্টাফ রিপোর্টার (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ):
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৪১৮

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নাহিদা বারিক বলেছেন, প্রতিটি মায়ের উচিত তার সন্তান কোথায় যাচ্ছে, কার সঙ্গে মেলামেশা করছে এবং ঠিকমতো লেখাপড়া করছে কি-না এসব ব্যাপারে খোঁজ রাখা। সন্তানকে মানুষের মতো মানুষ করতে হলে সর্ব প্রথম মায়ের ভূমিকা সঠিকভাবে পালন করতে হবে। সন্তানের প্রতি মায়েদের খেয়াল রাখতে হবে। আর লেখাপড়ার ক্ষেত্রে স্কুলের শিক্ষকদের পাশাপাশি মায়েদের সব সময় লক্ষ্য রাখতে হবে। আর সব মায়েরা যেন তাদের সন্তানদের বাল্যবিবাহ না দেন সেদিকে সচেতন হতে হবে। আমি গত ১০ মাসে অনেক বাল্য বিবাহ বন্ধ করেছি।
শুক্রবার সকালে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বৃত্তি এসোসিয়েশনের উদ্যোগে সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল ধনকুন্ডা পপুলার হাইকুল প্রাঙ্গনে শত মায়ের উপস্থিতিতে মা সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি মায়েদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, আপনাদের যাদের মেয়ে আছে আপনারা সৌভাগ্যবান। খেয়াল করেন, বৃদ্ধ বয়সে কে দেখে? মেয়ে-না ছেলে?। তখন মায়েরা বলেন মেয়ে। ইউএনও বলেন, আপনি আপনার বাবা-মায়ের জন্য কতটুকু করতে পেরেছেন, বা করছেন। বলতে পারবেন? পারবেন না। আপনি তো চান আপনার মেয়ে আপনার জন্য কিছু করবে। কিন্তু কিভাবে করবে? আপনি যদি আপনার বাচ্চার লেখা-পড়া বন্ধ করে দেন। তাড়াতাড়ি করে বিয়ে দিয়ে দেন। তাকে তো কিছু করার কোন সুযোগ দিতে হবে। ধরেন তার স্বামী বড় লোক। সেই মেয়েটি চাইলে কি আপনার জন্য কিছু করতে পারবে? কিভাবে পারবে? তার জন্য তাকে তার স্বামীর কাছে চাইতে হবে। আমাকে এটা দাও আমি আমার মাকে দিবো। আর আপনি যাদ আপনার এই সন্তানকে লেখা-পড়া করান। তাহলে আমি যেখানে দাড়িয়ে কথা বলছি আপনার সন্তান একদিন এখানে দাড়িয়ে কথা বলবে। আজকে আমি আমার বাবা-মায়ের জন্য করছি। এজন্য আমার স্বামীকে জিজ্ঞেস করতে হচ্ছে না। আর আপনার মেয়েকে কেন তার স্বামীর কাছে জিজ্ঞেস করে আপনার জন্য করতে হবে? তার একমাত্র পথ হলো লেখা-পড়া করানো। ইউএনও বলেন, এখন যে মায়েরা এখানে আছেন তারা কথা দেন কোনভাবেই আপনার মেয়ের লেখা-পড়া বন্ধ করবেন না। আপনার মেয়ে একদিন ডাক্তার হবে, ইঞ্জিনিয়ার হবে, ম্যাজিস্ট্রেট হবে। এই জন্য আপনার মনের জোর লাগবে। মনবল লাগবে। কোনভাবেই মনবল ভাঙ্গা যাবে না। তখন হাত উঁিচয়ে সম্মতি দেন মায়েরা। এবং বলেন আমরা সন্তানের লেখা-পড়া বন্ধ করবো না।
নাহিদা বারিক মায়েদের আরো বলেন, আমাদের আর্থিক মুক্তি যত দিন না আসবে আমাদের স্বাধীনতা আসবে না। আমাদের কিছু করতে হবে। আর ভালো কিছু করতে হলে আমাদের লেখা-পড়া করতে হবে। আপনি যত কস্টই করেন আপনার সন্তানের লেখা-পড়া বন্ধ করবেন না। যদি মনে হয় আপনার স্বামী পারছে না। সে চাচ্ছে মেয়েকে বিয়ে দিয়ে দিতে। কিন্তু আপনি কথা বলুন। আমাদের সরকারের বিভিন্ন ঋণ আছে। বিভিন্ন কর্মসুচি রয়েছে। আপনারা তো সেগুলোর সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারেন। আপনি যদি ১৫ হাজার ২০ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে (যেটা সরকারীভাবে দেয়া হয়) আপনি যদি চারটা মুরগিও পালন করেন তারপরও তো আপনি আপনার বাচ্চাটাকে পুষ্টিকর খাবার দিতে পারেন। তারপরও তো আপনি কিছু করতে পারলেন। সরকার লেখা পড়ার জন্য উপবৃত্তি দিচ্ছে, বই দিচ্ছে। অনেক কিছুই করছে। শুধু কি লাগবে একটু চেষ্টা। আপনার চেষ্টাই আপনার সন্তান শিক্ষিত হবে। নিজের পায়ে দাড়াবে। বক্তব্য শেষে নাহিদা বারিক ৩০ টি স্কুলের জন্য ৩০ি স্বাস্থ বার্তা বই বিতরণ করেন।
ধনকুন্ডা পপুলার হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক দারুল ইসলামের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নাসিক ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা, মানবজমিনের স্টাফ রিপোর্টার বিল্লাল হোসেন রবিন, নারায়ণগঞ্জ বিডি ক্লিন এর সমন্নয়ক এস এম বিজয়, ধনকুন্ডা পপুলার হাই স্কুলের সভাপতি বাদল ভুঁইয়া, ধনকুন্ডা পপুলার হাই স্কুলের দাতা সদস্য মোঃ জালাল, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বৃত্তি এসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ সোহেল, শাহিনূর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা মোঃ আরিফ হোসেন ঢালী, জ্ঞানের আলো আইডিয়াল স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সাইফুল ইসলাম খন্দকার, মার্জিয়া স্কুল এন্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা মোঃ মামুন, জালকুড়ি তালতলা আইডিয়াল স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা মোঃ জাকির হোসেন, রমিজ উদ্দিন ভুইয়া স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ জামান, আইডিয়াল কম্পিউটার একাডেমি প্রতিষ্ঠাতা মোঃ কামরুল ইসলাম, আদমজীনগর এ্যাকটিভ হাই স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা জাবেদ আহমেদ প্রমুখ।
উল্লেখ্য সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বৃত্তি এসোসিয়েশনের উদ্যোগে ১৪টি কিন্ডারগার্টেন স্কুলের ৪শতাধিক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহনে ধনকুন্ডা পপুলার হাইস্কুলে বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। মা সমাবেশে যোগ দেয়ার আগে সদর উপজেলা ইউএনও নাহিদা বারিক পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন।

ফেসবুকে আমরা

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.bangla24bdnews.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Customized By NewsSmart