1. admin@bangla24bdnews.com : b24bdnews :
  2. robinmzamin@gmail.com : mehrab hossain provat : mehrab hossain provat
  3. maualh4013@gmail.com : md aual hosen : Md. Aual Hosen
  4. tanvirahmedtonmoy1987@gmail.com : shuvo khan : shuvo khan
শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:৫৪ অপরাহ্ন

হারিয়ে যাচ্ছে গরু-মহিষের গাড়ি

স্টাফ রিপোর্টার (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ):
  • আপডেট সময় : বুধবার, ১৫ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৪৮৬

একসময় গরু-মহিষের গাড়িই ছিল এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাওয়ার ক্ষেত্রে ভরসা! বরযাত্রী থেকে শুরু করে কনে আনা চলতো এগুলো দিয়ে। জমি থেকে ধান আনা, জমিতে জৈব সার নিয়ে যাওয়া, মালামাল পরিবহনেও এগুলো ছিল অপরিহার্য। এখন গরু-মহিষের গাড়ি প্রায় দেখা যায় না বললেই চলে।

গরু-মহিষের গাড়িগুলো কাঠের চাকা ও বাঁশ দিয়ে তৈরি করা হতো। এখন তার স্থান দখল করেছে মাহিন্দ্রা, টমটমসহ আরও কিছু যানবাহন। এখনো কোথাও কোথাও গরু-মহিষের গাড়ির দেখা মেলে। হয়তো কিছুদিন পরে সেগুলোও আর দেখা যাবে না। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম হয়তো গল্প শুনেই জানবে গরু-মহিষের গাড়ির কথা।

অনেক এলাকায় এখনো গরু-মহিষে গাড়ি ব্যবহার করা হয়। জমি থেকে ধান আনা, জমিতে জৈব সার নিয়ে যাওয়াসহ মালামাল পরিবহনের কাজে এখনো গাড়িগুলো অপরিহার্য। ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ভেতরে যেসব রাস্তায় বড় গাড়ি ঢোকে না এখনো সেসব রাস্তায় গরু-মহিষের গাড়ি চলে।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার রুহিয়া উচ্চ বিদ্যালয় সহকারী প্রধান শিক্ষক সাইফুর রহমান বলেন, আমি ১৯৯৪ সালে পঞ্চগড় মডেল হাটে বিয়ে করেছি । তখন এত আধুনিক যানবাহন ছিল না। ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বড়গাঁও ইউনিয়নের মোলান খুড়ি গ্রাম থেকে যখন আমরা মিনিবাসে করে বিয়ের বরযাত্রী যাই। তখন বাড়ি থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার রাস্তা হেঁটে মিনি বাসে উঠতে হয়। ওই সময় বরযাত্রীরা কেউ মহিষের গাড়িতে করে, কেউ বা পায়ে হেঁটে গিয়ে মিনিবাসে উঠতো। বিয়ে করে যখন আমরা গ্রামের বাড়ির দিকে রওয়ানা হই মিনিবাস তখন গ্রামের ছোট রাস্তায় ঢুকতো না। বাড়ি থেকে দুই কিলোমিটার দূর থেকে মিনিবাস থেকে নেমে পায়ে হেঁটে আসতে হতো বাড়িতে। তখন আমাদের (বর-কন) মহিষের গাড়িতে করে বাড়িতে আনা হয়েছিল।

সদর উপজেলার আসাদুল ইসলাম বলেন, বেশ কয়েক বছর আগে গরু-মহিষের গাড়ি বিভিন্ন কাজে ব্যবহার হতে দেখেছি। এখন গরু-মহিষের গাড়ি তেমন আর ব্যবহার হয় না। এখন মানুষ মাহিন্দ্রা, পাওয়ারট্রলি ও ট্রাক্টরসহ ইঞ্জিন চালিত গাড়ি দিয়ে যাতায়াতসহ বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করে। আগে গরু-মহিষের গাড়িতে সেসব করা হতো।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, গরু-মহিষের গাড়ি ঐতিহ্যবাহী বাহন ছিল। এই গাড়ি দিয়ে আগের মানুষ যাতায়াতসহ বিভিন্ন কাজ করতেন। আগের অনেক ঐতিহ্য ধীরে ধীরে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। এখন মানুষ গরু-মহিষের গাড়ি ব্যবহার করার চেয়ে ইঞ্জিন চালিত গাড়ি বেশি ব্যবহার করেন।

ফেসবুকে আমরা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.bangla24bdnews.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Customized By NewsSmart