সৈয়দপুরে এক ডজন খুনের বিচার হয়নি আজও

0
6

এসএপ্রিন্স নীলফামারী (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ): নীলফামারীর সৈয়দপুরে এক ডজন খুনের বিচার হয়নি আজও। বছরের পর বছর ঝুলে আছে চাঞ্চল্যকর এসব খুনের মামলাগুলো। আলোচিত এসব মামলার বিচার দীর্ঘসূত্রিতায় আটকা পড়েছে। বার বার তদন্ত কর্মকর্তা বদল হওয়ায় খুনের ঘটনা উম্মোচনে কালক্ষেপন হচ্ছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হলেও নিহতের স্বজনদের দাবি দ্রুত বিচারের। নানা জটিলতায় মুক্তিযোদ্ধা, স্কুল ছাত্রসহ ১২টি চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ডের কোন কুলকিনারা হয়নি।
২০১১ সালের ২৬ জানুয়ারি খুন হন মুক্তিযোদ্ধা ও উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোখলেছুর রহমান। নৃশংস এই খুনের বিচারের দাবিতে গোটা জেলা ফুঁসে উঠলেও ৪ বছরেও বিচারকার্য শেষ হয়নি। একইভাবে ২ বছরেও সনাক্ত হয়নি মাইক্রোবাস চালক নাদিম, বিকাশকর্মী হাবিব ও ঝালমুড়ি বিক্রেতা হেলাল উদ্দিন হত্যাকান্ডের মোটিভ। মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, ২০১৩ সালের ১৪ মার্চ খুন হন মাইক্রোবাস চালক নাদিম। একই বছরের ২৩ জুন বিকাশকর্মী হাবিব ও ২৬ ডিসেম্বর মুড়ি বিক্রেতা হেলাল উদ্দিনকে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা।
আর ধীরগতিতে তদন্ত চলছে উপজেলার কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নের মাদ্রাসা ছাত্রী জান্নাতি বেগম হত্যা মামলার। ২০১৪ সালের ৯ সেপ্টেম্বর নিজ বাসায় গলা কেটে তাকে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকান্ডের মামলা হলেও এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।
২০১৫ সালের ৭ ফেব্র“য়ারি দিনেদুপুরে সাহেবপাড়ায় রেলওয়ে কোয়ার্টার ভবনে নৃশংসভাবে খুন করা হয় তাহেরা বেগমকে। এ হত্যাকান্ডের মোটিভ উদঘাটনে নিহতের নিকটজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ গ্রেফতার করলেও জামিনে ছাড়া পেয়েছেন তারা। একই বছরের ১৩ জুন শহরের টেকনিক্যাল অ্যান্ড কলেজের মেধাবী ছাত্র সিরাজুম মনির খান সাকিবকে নিজ বাসায় শ্বাসরোধ করে হত্যা হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। এই হত্যার বিচার দাবিতে মানববন্ধন, স্মারকলিপি প্রদানসহ আন্দোলন করে যাচ্ছে তার সহপাঠিসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও ছাত্ররা।
এছাড়া খাদেম, বিধবা ও কৃষক হত্যায় মামলা হলেও কোন হত্যাকান্ডের বিচার শেষ হয়নি। বর্তমানে এসব চাঞ্চল্যকর মামলার তদন্ত করছেন সিআইডি, ডিবি ও থানা পুলিশ। শান্তিময় সৈয়দপুরের এসব নৃশংস হত্যাকান্ডে দীর্ঘসূত্রিতাকে দুষছেন সচেতনমহল। খুনের মোটিভ ও খুনিদের গ্রেফতার করে বিচারের দাবি তাদের ও নিহতের স্বজনদের।
সৈয়দপুর সার্কেলের এএসপি সাজেদুর রহমান জানান, মামলাগুলো দ্রুত তদন্ত করে কার্যকরী ব্যবস্থা নেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। থানার নতুন অফিসার ইনচার্জ যোগদান করেছেন। ফলে কাজের গতি ফিরে আসবে বলে জানান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here