আজ: শনিবার, ২৩শে জুন, ২০১৮ ইং, ৯ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, বর্ষাকাল, ৯ই শাওয়াল, ১৪৩৯ হিজরী, রাত ১২:৪০

ইমরান এইচ সরকারকে আনফ্রেন্ড করতে জয়ের আহবানে সাড়া নেই

ঢাকা (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ): গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকারকে ফেসবুকে আনফ্রেন্ড ও আনফলো করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের আহ্বানে তেমন সাড়া মেলেনি।

প্রবীণ সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেফতারের ঘটনায় ফেসবুক পেজে ইমরান এইচ সরকার নিন্দা জানানোয় এ আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রীপুত্র। তবে জয়ের আহ্বানে সাড়া দেননি ইমরানের ফলোয়াররা (ফেসবুক অনুসারী)। উল্টো ওই আহ্বানের পর ইমরানের ফেসবুক ফলোয়ারের সংখ্যা সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে।

সোমবার (১৮ এপ্রিল) ইমরান এইচ সরকারের ফেসবুক পেজ পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ফলোয়ারের সংখ্যা ছিল ৮ লাখ ৫৯ হাজার ৭৬ জন। আধা ঘণ্টার ব্যবধানে দুপুর ১২টায় তা বেড়ে হয় ৮ লাখ ৫৯ হাজার ১০৮ জনে। দুপুর সাড়ে ১২টায় তা আরও বেড়ে দাঁড়ায় ৮ লাখ ৫৯ হাজার ১৫২ জনে।

এভাবে সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে ইমরান এইচ সরকারের ফেসবুক পেজের ফলোয়ার সংখ্যা। দুপুর ১টায় গণজাগরণ মঞ্চের এই মুখপাত্রের ফেসবুক ফলোয়ার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৮ লাখ ৫৯ হাজার ২০৬ জন। আর বিকেল সাড়ে ৪টায় তা আরও বেড়ে দাঁড়ায় ৮ লাখ ৫৯ হাজার ৮৯৬ জনে। অর্থাৎ ৫ ঘণ্টার ব্যবধানে ইমরান এইচ সরকারের ফেসবুকে ফলোয়ারের সংখ্যা বেড়েছে ৮২০ জন। ফলোয়ারের এই সংখ্যা সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ক্রমান্বয়ে বাড়ছে।

শফিক রেহমানকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ জানিয়ে ১৬ এপ্রিল ইমরান এইচ সরকার তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘প্রবীণ (৮১ বছর বয়সী) সাংবাদিক শফিক রেহমানের গ্রেফতার ও রিমান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। শফিক রেহমানের রাজনৈতিক আদর্শের সাথে আমি একমত নই। ভিন্নমতের হলেই তাকে দমন করার যে নোংরা রাজনৈতিক অপকৌশল, এর একটা অবসান চাই। দেশে যখন একের পর এক মানুষ খুন হচ্ছে, লেখক-প্রকাশক-বিদেশি থেকে শুরু করে মসজিদ-মন্দিরে ঢুকে মুয়াজ্জিন-পুরোহিতকে হত্যা করা হচ্ছে তখন খুনিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে অপহরণের বায়বীয় অভিযোগে এমন একজন প্রবীণ সাংবাদিককে গ্রেফতার সত্যিই হতাশাজনক। আমি প্রত্যাশা করি, সরকারের শুভবুদ্ধির উদয় হবে এবং প্রতিপক্ষকে দমনের চেয়ে দেশের সামগ্রিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়নের দিকে মনোযোগী হবে।’

ইমরানের এমন স্ট্যাটাসের পর রবিবার বাংলাদেশ সময় রাত ৯টার দিকে ইমরান এইচ সরকারকে ‘সুবিধাবাদী ও মিথ্যাবাদী’ অভিহিত করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন প্রধানমন্ত্রীপুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়। ওই স্ট্যাটাসে ইমরানকে আনফ্রেন্ড ও আনফলো করার আহ্বানও জানান প্রধানমন্ত্রীর এই উপদেষ্টা।

ফেসবুকে জয় লেখেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিস আমাকে অপহরণ ও হত্যার ষড়যন্ত্রে শফিক রেহমানের সরাসরি সংশ্লিষ্টতা উদঘাটন করেছে। তারা এ বিষয়ে প্রমাণাদি আমাদের সরকারের কাছে দিয়েছে। তাকে এই প্রমাণের ভিত্তিতেই গ্রেফতার করা হয়েছে। আমি এর চেয়ে বেশি কিছু প্রকাশ করতে পারছি না, কিন্তু এই প্রমাণ দ্ব্যর্থহীন এবং অখণ্ডনীয়।’

‘আমি আশাই করেছিলাম বিএনপি এটা নিয়ে মিথ্যা বলার চেষ্টা করবে। যদিও, আমি আশ্চর্য হয়েছি ইমরান সরকারের বিষয়ে। সম্ভবত শেষ পর্যন্ত তার আসল চেহারাটা উন্মোচিত হলো। এটা দেখে মনে হচ্ছে সে আমাদের বেশির ভাগ সুশীলের মতোই, আরেকটা সুবিধাবাদী এবং মিথ্যাবাদী। হয়তো বিএনপি তাকে পয়সা দিয়েছে। কে জানে। যেভাবেই হোক, আমি তার প্রতি সব শ্রদ্ধা হারিয়েছি। তাকে তার বক্তব্য প্রত্যাহার করে আমাদের সরকারের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে।’

‘আমি আমার সকল বন্ধু এবং ভক্তদের কাছে আহ্বান জানাচ্ছি, যারা তাকে অনুসরণ করেন তারা তাকে ফেসবুক থেকে আনফলো/আনফ্রেন্ড করুন। সে একজন অপরাধীর হয়ে কথা বলছে যে আমাকে হত্যার চেষ্টা করেছিল।’

সজীব ওয়াজেদ জয়ের এই আহ্বানের পর সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দ্য রিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকমের সঙ্গে কথা হয় ইমরান এইচ সরকারের। এ সময় তিনি বলেন, ‘সজীব ওয়াজেদ জয়ের মতো ব্যক্তির কাছ থেকে এমন স্ট্যাটাস কোনোভাবেই প্রত্যাশিত নয়।’

ইমরান বলেন, ‘একটা মানুষের কথা বলার স্বাধীনতা আছে। ভিন্নমত হলেই যেন দমন না করা হয়। আমি একজনের পক্ষে কথা বললাম বলে আমার আর কথা বলার অধিকার নাই। আমাকে আনফ্রেন্ড করবে। এটা কীভাবে বলে একজন মানুষ?’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার ফেসবুকের থেকে ফেসবুক পেজটা বেশি অ্যাকটিভ। আমি ওখানে দেখিনি আমার ফ্রেন্ড কমেছে। বরং আমার কাছে মনে হলো ফ্রেন্ড আরও বাড়ছে। যাই হোক, ফেসবুক লাইক এটি তেমন কিছু না। কিন্তু হতাশাজনক যে, একজন রাজনীতিবিদ যেহেতু তিনি (সজীব ওয়াজেদ জয়) পরবর্তী প্রজন্মের নেতৃত্ব দেবেন, তাকে আরও ব্রডলি (বড় পরিসরে) চিন্তা করতে হবে। আগের যে গুতাগুতি, আগের যে রাজনীতি তার থেকে একটু তো পরিবর্তন হতে হবে।’

রবিবার দুপুর ২টার দিকে ইমরান এইচ সরকার তার ফেসবুক পেজে আরও একটি স্ট্যাটাস দেন। এই স্ট্যাটাসে তিনি লেখেন, ‘মত প্রকাশের স্বাধীনতা আর ভিন্নমতের প্রতি শ্রদ্ধার কথা বলতে গিয়ে সম্ভবত আমার নিজের মত প্রকাশের স্বাধীনতাই আজ হুমকির মুখে। কী ভয়াবহ ব্যাপার!’

‘আমি আমার স্ট্যাটাসে পরিষ্কার লিখেছি, আমি শফিক রেহমানের রাজনৈতিক আদর্শের সাথে একমত নই। এমনকি আমি স্ট্যাটাসের কোথাও তার মুক্তির কথাও বলিনি। তাতেই যেভাবে আক্রমণ হচ্ছে, খুব সহজেই অনুমান করা যায়, ভিন্নমতের প্রতি সমাজে কতটুকু শ্রদ্ধা বিদ্যমান।’

‘এ দেশে খুব গৎবাঁধা কিছু কথা বলা হয়। একটা খুনের বিচার চাইতে গেলেই কেউ কেউ বলে “অমুক এটা করতো” আপনি খুনের বিচার চেয়ে তার সেই কাজকে সমর্থন করলেন! কারো মত প্রকাশের স্বাধীনতা নিয়ে বললেও একই প্রশ্ন। কারো সাথে সম্পূর্ণ ভিন্নমত পোষণ করেও যে তার অধিকারের জন্য লড়াই করা যায়, সরল এই বিষয়টি সমাজ থেকে একদম হারিয়ে যাচ্ছে। কোনো খুনের বিরুদ্ধে কিংবা কারো মত প্রকাশের স্বাধীনতার পক্ষে দাঁড়ানো মানে যে তার বক্তব্যের সাথে একমত হওয়া নয়, এই বোধটুকুও আমরা হারিয়ে ফেলছি।’

‘আমি আমার ওই স্ট্যাটাসে দেশে চলমান খুন-ধর্ষণের বিচার নিয়েও বলেছিলাম। এই বছরের প্রথম ৩ মাসেই দেশে প্রায় ১ হাজারের কাছাকাছি মানুষ খুন হয়েছে। কেউ কি বলতে পারবেন যে, এর একটি ঘটনার বিচার হয়েছে? কেনো, এ দেশে প্রধানমন্ত্রীর সন্তান না হলে কি কেউ বিচার পাবে না? তনুর বাবা চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী বলে কি তার বিচার পাওয়ার অধিকার নেই?’

‘আমাদের, এ দেশের সাধারণ নাগরিকদের সম্ভবত আরেকটু সজাগ হবার দরকার আছে। আমি দেখতে পাচ্ছি, প্রতিপক্ষের প্রতি যেকোনো অবিচার হলে আমরা প্রত্যেকে হাততালি দেই। আর এটাই কিন্তু আমার, আপনার সবার বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হচ্ছে। দেখানো হচ্ছে দেখো, একে গ্রেফতার, হত্যা, গুম করলে কিংবা শক্তি প্রয়োগ করে মুখ বন্ধ করিয়ে দিলে কত মানুষ খুশি হয়, তাই আমরা যা করেছি ঠিক করেছি। একবার ভেবে দেখুন, আমার/আপনার হাততালি আমার/আপনার বিরুদ্ধেই ব্যবহার হলো! আমাদের প্রত্যেকের সাথে ঘটা অন্যায়গুলো এভাবেই প্রতিপক্ষের হাততালির আড়ালে স্বীকৃত করে নেওয়া হচ্ছে। ফলস্বরূপ আমরা সকলেই অনিরাপদ হয়ে যাচ্ছি।’

‘যখন দেখতে পাচ্ছি নানাভাবে একের পর এক মানুষের কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে এবং সেগুলো বিভিন্ন উপায়ে জাস্টিফাই করা হচ্ছে, তখন জেনে গেছি এই দানব আসলে আমার দিকেই আসছে; আমাদের সবার দিকেই আসছে! তাই আমরা যদি পক্ষ-বিপক্ষ ভুলে এই দানবীয় শক্তির বিরুদ্ধে রুখে না দাঁড়াই, আমাদের বাকরুদ্ধ রেখে রিজার্ভ লুটের মতো সবকিছু লুট হতে থাকবে, আমাদের কিছুই করার থাকবে না।’

‘আর আমার ফেসবুক? এটা তো জনতার গণমাধ্যম! আমার ফেসবুক সমাজের নির্যাতিত, বঞ্চিত, অসহায় মানুষের পক্ষে কথা বলে। সকল রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করেই অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধে লড়াই অব্যাহত থাকবে। ভলতেয়ারের আমার প্রিয় কয়েকটি লাইন দিয়ে শেষ করছি…’

“আপনার সঙ্গে আমি একমত হতে পারবো না কিন্তু আমার সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করার যে অধিকার আপনার আছে, সে অধিকার প্রতিষ্ঠা করার জন্য প্রয়োজন হলে আমি জীবন দিতেও প্রস্তুত।”

Share

Author: 24bdnews

5048 stories / Browse all stories

Related Stories »

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ফেসবুকে আমরা »

ছবি সংবাদ »

নিউজ আর্কাইভ »

MonTueWedThuFriSatSun
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930 
       
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031   
       
      1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30      
   1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031 
       
   1234
12131415161718
262728    
       
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031    
       
    123
45678910
18192021222324
25262728293031
       
  12345
27282930   
       
      1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031     
    123
11121314151617
252627282930 
       
 123456
28293031   
       
     12
3456789
10111213141516
24252627282930
31      
   1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930  
       
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031    
       
     12
17181920212223
24252627282930
       
  12345
2728     
       
      1
23242526272829
3031     
   1234
262728293031 
       
   1234
12131415161718
       
      1
3031     
29      
       
      1
16171819202122
30      
   1234
12131415161718
19202122232425
262728293031 
       
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930    
       
     12
17181920212223
24252627282930
31      
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
       
     12
3456789
10111213141516
17181920212223
2425262728  
       
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
       

সবশেষ সংবাদ »

সারাদেশ »