দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ৩১৫, বিএনপি ৫০

0
6

ডেস্ক সংবাদ (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ): দেশের বিভিন্ন জেলায় দ্বিতীয় ধাপে ৬৩৯টি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে এখন পর্যন্ত (শুক্রবার সকাল ১১টা) ৪৪৬টি ইউনিয়নের বেসরকারি ফল পাওয়া গেছে।

এতে প্রথম ধাপের মতো দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত নির্বাচনেও বিপুল বিজয় পেয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ ৩১৫, বিএনপি ৫০, স্বতন্ত্র ৭৬, জাতীয় পার্টি ৩ ও জাসদ ২।

দ্বিতীয় ধাপে ভোটের আগেই আওয়ামী লীগ মনোনীত ৩১ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। একক প্রার্থী হওয়ায় সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা তাদের বিজয়ী ঘোষণা করেন। 

 বাংলা ২৪ বিডি নিউজের প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্য নিয়ে প্রতিবেদন 

যশোর : সদর উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের চেয়ারম্যান পদে ১০ আওয়ামী প্রার্থী জয়ী হয়েছেন। আর একটি মাত্র ইউনিয়নে এ পদে বিএনপি প্রার্থী জয় পেয়েছেন। এ ছাড়া চাঁচড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে। এর আগে তিন ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।

সদর উপজেলা নির্বাচন অফিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে যশোর উপশহর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী এহসানুর রহমান লিটু, নওয়াপাড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নাসরিন সুলতানা খুশি, বসুন্দিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের রিয়াজুল ইসলাম খান রাসেল, রামনগর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নাজনীন নাহার, কচুয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের লুৎফর রহমান, ইছালী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের এসএম আফজাল হোসেন, লেবুতলা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের আলিমুজ্জামান মিলন, কাশিমপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মশিয়ার রহমান, চুড়ামনকাটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের আব্দুল মান্নান মুন্না, হৈবতপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সিরাজুল ইসলাম ও ফতেপুর ইউনিয়নে বিএনপির রবিউল ইসলাম নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মোদাচ্ছের হোসেন, দেয়াড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের আনিসুর রহমান আনিস ও আরবপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের শাহারুল ইসলাম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।

মৌলভীবাজার : জেলার জুড়ী ও বড়লেখা উপজেলার ১৫ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ.লীগের ১০, বিএনপির ৪, আ.লীগ বিদ্রোহী একজন বিজয়ী হয়েছেন। বিজয়ীরা হলেন- বড়লেখা উপজেলার সদরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সুয়েব আহমদ, বর্নি ইউপিতে আওয়ামী লীগের এনাম উদ্দিন, দাসের বাজার ইউপিতে বিএনপির কমর উদ্দিন, নিজ বাহাদুরপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগের ময়নুল হক, দক্ষিণভাগ দক্ষিণ ইউপিতে আওয়ামী লীগের আজির উদ্দিন, দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপিতে আওয়ামী লীগের এনাম উদ্দিন, দক্ষিণ শাহ্বাজপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী শাহাব উদ্দিন, উত্তর শাহ্বাজপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগের আহমদ জুবায়ের লিটন, তালিমপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগের বিদ্যুৎ কান্তি দাস, সুজানগর ইউপিতে বিএনপির নজিব আলী।

জুড়ী উপজেলার পূর্ব জুড়ী ইউপিতে আওয়ামী লীগের সালেহ উদ্দিন আহমদ, জায়ফরনগর ইউপিতে বিএনপির মাছুম রেজা, পশ্চিম জুড়ী ইউপিতে আওয়ামী লীগের শ্রীকান্ত দাস, গোয়ালবাড়ী ইউপিতে আওয়ামী লীগের শাহাব উদ্দিন আহমদ লেমন ও সাগরনাল ইউপিতে বিএনপির এমদাদুল ইসলাম। বড়লেখার রিটার্নিং ইউএনও এসএম আবদুল্লাহ আল মামুন ও জুড়ীর সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফরহাদ হোসেন ফলাফলের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

লালমনিরহাট : জেলার হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত ও বিদ্রোহী প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। এরা হলেন- পাটগ্রামের দহগ্রাম ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ নেতা ও স্বতন্ত্র প্রার্থী কামাল হোসেন, হাতীবান্ধার সানিয়াজান ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ নেতা ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল গফুর, বড়খাতা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবু হেনা মোস্তফা কামাল সোহেল, গোড্ডিমারী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিয়ার রহমান, ফকিরপাড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নুরুল ইসলাম, সিন্দুর্ণা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নুরুল আমিন, নওদাবাস ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের অশ্বিনী কুমার বসুনীয়া, ভেলাগুড়ি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মহির উদ্দিন, সিঙ্গিমারী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের মনোয়ার হোসেন দুলু, ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নেতা ও স্বতন্ত্র প্রার্থী রেজ্জাকুল ইসলাম কায়েস, পাটিকাপাড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সফিউল আলম নির্বাচিত হয়েছেন।

ঠাকুরগাঁও : জেলায় রাণীংশকৈল উপজেলার ৫টি ও হরিপুর উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে দ্বিতীয় ধাপে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এখানে আওয়ামী লীগের সাত প্রার্থী ও স্বতস্ত্র তিন প্রার্থী জয়ী হয়েছেন। বিএনপির সব  ইউনিয়নে ভরাডুবি হয়েছে। রাণীংশকৈল উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের মধ্যে তিনটিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী, দুইটি স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হয়েছেন। জয়ী আওয়ামী লীগের তিন প্রার্থী হলেন- ধর্মগড় ইউনিয়নে সফিকুল ইসলাম মুকুল, লেহেম্বা ইউনিয়নে আবুল কামাল আজাদ, কাশীপুর ইউনিয়নে আব্দুর রউফ। নেকমরদে স্বতন্ত্র প্রার্থী এনামুল হক ও রাতোরে আব্দুর রহিম নির্বাচিত হয়েছে। হরিপুর ৬টি ইউনিয়নে ৪টিতে আওয়ামী লীগের প্রাথী জয়ী হয়েছেন।

জয়ী আওয়ামী লীগের ৪ প্রার্থী হলেন- গেদুরা ইউনিয়নে আব্দুল হামিদ, আমগাঁও ইউনিয়নে শামসুল হুদা তালুকদার, ডাঙ্গীপাড়ায় মনিরুজ্জামান মনি, ভাতুড়িয়ায় শাহজাহান আলী। হরিপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী আতাউর রহমান নির্বাচিত হয়েছে।

কুষ্টিয়া : জেলার দৌলতপুর উপজেলায় ১৪টি ইউনিয়নের সব কটিতেই আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। নির্বাচিতরা হলেন- দৌলতপুর সদর ইউনিয়নে মহিউল ইসলাম, হোগলবাড়িয়া ইউনিয়নে সেলিম চৌধুরী, প্রাগপুর ইউনিয়নে আশরাফুজ্জামান, রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নে সিরাজ মন্ডল, আড়িয়া ইউনিয়নে সাইদ আনছারী বিপ্লব, খলিশাকুন্ডি ইউনিয়নে সিরাজুল ইসলাম, মথুরাপুর ইউনিয়নে সরদার হাসিুদ্দিন হাসু, ফিলিপনগর ইউনিয়নে ফজু কবিরাজ, চিলমারী ইউনিয়নে সৈয়দ আহমেদ, মরিচা ইউনিয়নে শাহ আলমগীর, রিফায়েতপুর ইউনিয়নে জামিরুল ইসলাম বাবু, পিয়ারপুর ইউনিয়নে আবু ইউসুফ লালু, বোয়ালিয়া ইউনিয়নে মহিউদ্দিন বিশ্বাস ও আদাবাড়িয়া ইউনিয়নে মকবুল হোসেন।

কুমিল্লা : জেলার বরুড়া ও সদর দক্ষিণ উপজেলার ১৪ ইউনিয়নের মধ্যে ১৩টিা ফলাফল বৃহস্পতিবার রাতে ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে পাঁচটিতে বিএনপি ও আটটিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। সংশ্লিষ্ট উপজেলা রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এ নির্বাচনে জাল ভোট ও সহিংসতার কারণে বরুড়া উপজেলার চিতড্ডা ইউপির ফলাফল স্থগিত রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলার সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা রাশেদুল ইসলাম। বরুড়া উপজেলার আটটি ইউনিয়নের মধ্যে আগানগর ইউপিতে বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ইফতেখার আলম শাহীন, ভবানীপুর ইউপিতে বিএনপির সৈয়দ রেজাউল হক রেজু, লক্ষ্মীপুর ইউপিতে বিএনপির নুরুল ইসলাম, আড্ডা ইউপিতে বিএনপির মো. জাফর উল্লাহ চৌধুরী, আদ্রা ইউপিতে বিএনপির মো. ফজলুল হক, খোশবাস ইউপিতে আওয়ামী লীগের নাজমুল হাছান, পয়ালগাছা ইউপিতে আওয়ামী লীগের সৈয়দ মাহিন, ঝলম ইউপিতে আওয়ামী লীগের নুরুল ইসলাম নুরুকে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে।

এদিকে জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার পাঁচ ইউপিতেই আ.লীগের প্রার্থী বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন। তারা হলেন- চৌয়ারা ইউপিতে আ.লীগের আবুল কালাম আজাদ, বারপাড়া ইউপিতে সেলিম আহাম্মেদ, জোড়কানন পূর্ব ইউপিতে হারিছ মিয়া, জোড়কানন পশ্চিম ইউপিতে হাসমত উল্লাহ ও পেরুল দক্ষিণ ইউপিতে সফিকুর রহমান।

নোয়াখালী : জেলার কবিরহাট উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের মধ্যে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ৪টিতে এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ৩টিতে জয়ী হয়েছেন। কোম্পানিগঞ্জের ৮টির সবগুলোই আওয়ামী লীগের প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। কেন্দ্রভিত্তিক ফলাফল অনুযায়ী এ তথ্য পাওয়া গেছে। নির্বাচিতরা হলেন- কবিরহাট উপজেলার সোন্দলপুর ইউনিয়নে নুরুল আমিন রুমি, নরোত্তমপুরে এ কে এম সিরাজ উল্যা, চাপরাশিরহাটে মহিউদ্দিন টিটু, ধানশালিকে ইয়াকুব নবী এবং ধানসিঁড়িতে মো. আবদুল মন্নান (আ. লীগ বিদ্রোহী), বাটইয়াতে মো. মিজানুর রহমান (আ. লীগ বিদ্রোহী) ও ঘোষবাগে মো. মহসিন মিন্টু (আ. লীগ বিদ্রোহী)।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ৮টির মধ্যে সিরাজপুর ইউনিয়নের ৫টি কেন্দ্র স্থগিত হওয়ায় ওই কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত রয়েছে। অপর ৭টিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়েছেন। তারা হলেন চর পার্বতীপুর ইউনিয়নে কামরুল ইসলাম, চর হাজারীতে নুরুল হুদা, চর কাঁকড়ায় সফি উল্যাহ, চর ফকিরায় জামাল উদ্দিন লিটন, রামপুরায় ইকবাল বাহার চৌধুরী, মুছাপুরে নজরুল ইসলাস শাহিন এবং চর এলাহী ইউনিয়নে আব্দুর রাজ্জাক।

মাদারীপুর : সদর উপজেলার ১৫ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ৮, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ৫ ও স্বতন্ত্র একজন নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া ঘটমাঝি ইউনিয়নে ভোটকেন্দ্র ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের অভিযোগে স্থগিত করা হয়েছে। বাহাদুরপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, কালিকাপুর ইউপিতে এজাজুর রহমান আকন, ঝাউদি ইউপিতে সিরাজুল ইসলাম আবুল, খোয়াজপুরে মো. আলি মুধা, মোস্তফাপুরে কুদ্দুস মল্লিক, শিরখাড়ায় মজিবুর রহমান, দুধখালি ইউপিতে মিজানুর রহমান হিরু খান, পেয়ারপুরে মজিবুর রহমান খান এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন ছিলারচরে সাইফুল ইসলাম বাবুল সরদার, ধুরাইলে মজিবর মৃধা, কেন্দুয়া ইউপিতে মজিবর মাতুব্বর, কুনিয়ায় অমিত কবির, পাঁচখোলায় নজরুল ইসলাম আক্তার হাওলাদার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন রাস্তি ইউপিতে মনিরুজ্জামান মনির হাওলাদার।

পাবনা : জেলার দুই উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের মধ্যে ৭টিতে আওয়ামী লীগ এবং ৩টিতে বিএনপি প্রার্থীরা বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্র জানায়, ফরিদপুর উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪টিতে আওয়ামী লীগ ও ২টিতে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচিতরা হলেন-ফরিদপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সরোয়ার হোসেন, ডেমড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মাহফুজুর রহমান, হাদল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সেলিম রেজা, পুঙ্গুলি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আমিনুর রহমান মুকুল সরকার, বিএলবাড়ি ইউনিয়নে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম এবং বনওয়ারীনগরে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী জিয়াউর রহমান জিয়া।

অপরদিকে ভাঙ্গুড়া উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের মধ্যে ৩টিতে আওয়ামী লীগ এবং ১টিতে বিএনপি প্রার্থী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। এরা হলেন-অষ্টমনিশা ইউনিয়নে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আয়নুল হক, দিলপাশার ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অশোক কুমার ঘোষ, খানমরিচ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আসাদুর রহমান ও পার ভাঙ্গুড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্ব হেদায়েতুল হক।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার আটটি ইউনিয়নের মধ্যে সাতটির বেসরকারি ফল জানা গেছে। এই সাতটি ইউনিয়নের মধ্যে ছয়টিতে আওয়ামী লীগের এবং একটিতে বিএনপির প্রার্থী জয় পেয়েছেন।  ৭ ইউনিয়নে বিজীয়রা হলেন- গোমস্তাপুরে বর্তমান চেয়ারম্যান জামালউদ্দিন মন্ডল (নৌকা), রহনপুরে বর্তমান চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান আলী আনসারী (নৌকা), বাঙ্গাবাড়ীতে  সাদরুল ইসলাম (নৌকা), রাধানগরে মামুনুর রশিদ (নৌকা), বোয়লিয়ায় জিয়াউর রহমান আকবর (ধানের শীষ), আলীনগরে তরিকুল ইসলাম (নৌকা), পার্বতীপুরে লিয়াকত আলী খাঁন (নৌকা)।

 জয়পুরহাট : জেলার ৯টি ইউনিয়নের মধ্যে তিনটিতে চেয়ারম্যান পদসহ নির্বাচন হয়েছে। বাকি ছয়টিতে শুধু সদস্য পদে নির্বাচন হয়েছে। এর মধ্যে দুটিতে আওয়ামী লীগ, একটিতে আ.লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। সদর উপজেলায় তিনটি ইউপি নির্বাচনে চকবরকতে আওয়ামী লীগের শাহজান আলী ও জামালপুর ইউপিতে হাসানুজ্জামান মিঠু নৌকা প্রতীক নিয়ে এবং ভাদসা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী একে আজাদ আনারস প্রতীক নিয়ে বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে। বাকি ছয়টিতে আগেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে।

 নেত্রকোনা : জেলার ১০টিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী, তিনটিতে বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষের প্রার্থী এবং ২টিতে বিদ্রোহী প্রার্থী বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। আটপাড়া উপজেলার স্বরমুশিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আবদুস ছাত্তার, শুনই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সানোয়ার উদ্দিন ছানু, লুনেশ্বর ইউনিয়নে মাহফুজুল ইসলাম শিরিন, বানিয়াজান ইউনিয়নে ফেরদৌস রানা আনজু, তেলিগাঁতীতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত জাহাঙ্গীর হাসান, দুওজ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আবদুস সেলিম ওরফে মনি ও সুখারী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কফিল উদ্দিন ওরফে খোকন। মদনের কাইটাইল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাফায়েত উল্লাহ ওরফে রয়েল, চানগাঁওয়ে বিএনপি সমর্থিত নূরুল আলম তালুকদার ওরফে এন আলম, মদন ইউনিয়নে বিএনপির বিদ্রোহী বদরুজ্জামান মানিক, গোবিন্দশ্রী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত একেএম নূরুল ইসলাম, মাঘান ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত জিএম সামছুল আলম চৌধুরী, তিয়ম্রী ইউনিয়নে বিএনপির বিদ্রোহী ফখরুদ্দিন, নায়েকপুরে বিএনপি সমর্থিত আতিকুর রহমান নোমান ও ফতেহপুর ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থিত রফিকুল ইসলাম চৌধুরী।

 হবিগঞ্জ : আজমিরীগঞ্জ উপজেলার পাঁচ ইউনিয়নের তিনটিতে আওয়ামী লীগ ও দুটিতে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থীরা জয়লাভ করেছেন। এর মধ্যে ১ নং আজমিরীগঞ্জ সদর ইউনিয়নে আওয়াম লীগ প্রার্থী আব্দুস কদ্দুছ মিয়া (নৌকা), ২ নং বদলপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সুশেনজিৎ চৌধুরী (নৌকা), ৩ নং জলসুখা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ফয়েজ আহমেদ খেলু মিয়া (মোটর সাইকেল), ৪ নং কাকাইলছেও ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী নুরুল হক ভুইয়া (নৌকা), ৫ নং শিবপাশা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী নলিউর রহমান তালুকদার (মোটর সাইকেল) বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

কুড়িগ্রাম:   চিলমারী উপজেলায় ছয়টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ীরা হলেন- থানাহাট ইউনিয়নে আব্দুর রাজ্জাক মিলন (আওয়ামী লীগ), রানীগঞ্জে মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু (আওয়ামী লীগ), রমনায় আজগার আলী সরকার (আওয়ামী লীগ), নয়ারহাটে আবু হানিফা (বিএনপি), অষ্টমীরচর ইউনিয়নে আবু তালেব ফকির (আওয়ামী লীগ), চিলমারী ইউনিয়নে গয়ছুল আলম (আওয়ামী লীগ)। ভুরুঙ্গামারী উপজেলার সাতটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ীরা হলেন- তিলাই ইউনিয়নে ফরিদুল ইসলাম শাহীন (বিএনপি), পাইকেরছড়ায় আব্দুর রাজ্জাক (জাতীয় পার্টি), জয়মনিরহাটে জালাল উদ্দিন (আওয়ামী লীগ), আন্ধারীরঝাড়ে রাজু আহমেদ খোকন (স্বতন্ত্র- আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী), বলদিয়া ইউনিয়নে মোখলেছুর রহমান (বিএনপি), চর ভুরুঙ্গামারী ইউনিয়নে এ টি এম ফজলুল হক (জাতীয় পার্টি), বঙ্গসোনাহাট ইউনিয়নে শাহাজাহান আলী মোল্লা (জাতীয় পার্টি)।

ফরিদপুর:  আলফাডাঙ্গা উপজেলার তিনটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দুইটিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এবং একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়লাভ করেছে। আলফাডাঙ্গা উপজেলার বানা ইউপিতে নৌকা প্রতীকের বাবু হুমায়ন কবির হাদির প্রাপ্ত ভোট ৫০১৬ তার নিকটতম চশমা প্রতীকের শরীফ হারুন অর রশিদ পেয়েছেন ৪৩৪৬ ভোট। পাচুড়িয়া ইউপিতে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এস এম মিজানুর রহমান বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন। টগরবন্ধ ইউনিয়নে চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী ইমাম হাসান শিপন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here