পরীক্ষা দেয়া হলো না সুমাইয়ার, নৌকাডুবিতে মৃত্যু

0
4

নারায়ণগঞ্জ (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ) : স্কুল পরীক্ষায় অংশ নিতে গিয়ে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে ব্রহ্মপুত্র নদে নৌকাডুবিতে এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে আরো আন্তত ২০জন। সোমবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। নিহত ছাত্রী সুমাইয়া আক্তার (১৫) স্থানীয় পঞ্চমীঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী।
আহতদের মধ্যে ১০ম শ্রেণির এক ছাত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৈরী আবহাওয়া, অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা ও প্রচণ্ড স্রোতের কারণে পঞ্চমীঘাট এলাকা দিয়ে প্রবাহিত ব্রহ্মপুত্র নদে সকালে নৌকা ডুবির ঘটনা ঘটে। নৌকা ডুবিতে এক ছাত্রীর মৃত্যু হয়। এ সময় একই বিদ্যালয়ের আরো ১৫ জন শিক্ষার্থীসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হন।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সাদীপুর ইউনিয়নের পঞ্চমীঘাট এলাকায় অবস্থিত পঞ্চমীঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী সুমাইয়া আক্তার বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার জন্য সোমবার সকাল সোয়া নয়টার দিকে সনমান্দির ফতেপুরস্থ গ্রামের বাড়ি থেকে বের হয়।
পথে ২০/২৫ জন সহপাঠি ছাত্র-ছাত্রীর সঙ্গে জোয়ারদী গ্রাম এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে খেয়া পারাপার দেখা হয় তার।
বৈরী আবহাওয়া, গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি আর প্রচণ্ড স্রোতের মধ্যে নির্ধারিত সময়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে অন্য যাত্রীদের সঙ্গে অপেক্ষারত নৌকায় উঠে সবাই।
তাদের বহনকারী নৌকাটি ব্রহ্মপুত্র নদের মাঝামাঝি পৌঁছানোর পর সেটি প্রচণ্ড স্রোতে ডুবে যায়। এ সময় সুমাইয়া আক্তার নিখোঁজ হয় ও ১৫ ছাত্র-ছাত্রীসহ কমপক্ষে ২০ জন নৌ-যাত্রী আহত হয়।
পুলিশ ও এলাকাবাসী মাছ ধরার জাল দিয়ে দীর্ঘ ২ ঘণ্টাব্যাপী চেষ্টা চালিয়ে সুমাইয়া আক্তারের মরদেহ উদ্ধার করে।
আহতরা হলো- একই বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্রী নাহিদা আক্তার, হাসি আক্তার, দিলারা আক্তারসহ অজ্ঞাত আরো ১৫ জন। আহতদের মধ্যে নাহিদা আক্তারের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এদিকে নৌকাডুবির খবর পেয়ে সকাল থেকেই পঞ্চমীঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ে এলাকার হাজার হাজার উৎসুক জনতা ভিড় করে। এ সময় মেধাবী ছাত্রী সুমাইয়া আক্তারের লাশ পরিবারের লোকজন, সহপাঠি, শিক্ষক, অভিভাবকরা কান্নায় ভেঙে পড়েন।
নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক পঞ্চমীঘাট এলাকার এক ব্যক্তি জানান, আগে পঞ্চমীঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ে সকালে ও বিকেলে দুভাগে ভাগ করে ক্লাস ও স্কুল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হত। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির দ্বন্দ্বের কারণে এখন শুধু সকালে বিদ্যালয়ের সব কার্যক্রম পরিচালিত হয়। একসঙ্গে বেশিসংখ্যক ছাত্রছাত্রী বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়া করা ও নৌকা পারাপার হওয়ার কারণে ওই নৌ-দুর্ঘটনার শিকার হয়।
পঞ্চমীঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম জানান, নৌকা ডুবির ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক। পুরো বিদ্যালয় জুড়ে এখন শোকের মাতম চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here