পাটকলের আধুনিকায়নে বিজেএমসি ও চায়না টেক্সটাইলের চুক্তি

0
5

ঢাকা (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ): সরকারি পাটকলগুলোর আধুনিকায়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) সঙ্গে চুক্তি করেছে চীনের বেসরকারি প্রতিষ্ঠান চায়না টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রিয়াল করপোরেশন ফর ফরেন ইকোনমিক অ্যান্ড টেকনিক্যাল করপোরেশন (সিটিইএক্সআইসি)। বিজেএমসিকে প্রযুক্তিগত সহায়তার পাশাপাশি পরামর্শও দেবে চীনা প্রতিষ্ঠানটি।
সচিবালয়ে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) দুপুরে এ চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হয়। বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করবেন বিজেএমসির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) হুমায়ুন খালেদ এবং চায়না টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রিয়াল করপোরেশন ফর ফরেন ইকোনমিক অ্যান্ড টেকনিক্যাল করপোরেশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট মি. ফাং উয়ি। এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব এম এ কাদের সরকার, অতিরিক্ত সচিব গোপাল কৃষ্ণ ভট্টাচার্য, যুগ্ম-সচিব মো. রেজাউল কাদের, আবু ছাইদ শেখসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ ছাড়া চায়না টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রিয়াল করপোরেশন ফর ফরেন ইকোনমিক অ্যান্ড টেকনিক্যাল করপোরেশনের জেনারেল ম্যানেজার ওয়াং ঝাং চাও এবং চিফ রিপ্রেজেন্টটিভ জিও পেং উপস্থিত ছিলেন।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, বিজেএমসি’র অধীনস্থ ২৬টি পাটকলে মধ্যে ২৪টি মিলের আধুনিকায়নে ২০১৪ সালে বিএমআরই প্রকল্পের আনুমানিক ব্যয় প্রাক্কলন করা হয়েছিল ৩৫ কোটি মার্কিন ডলার। এরমধ্যে কারিগরি সহায়তা ২৮ কোটি মার্কিন ডলার এবং জিওবি অর্থায়ন ৭ কোটি মার্কিন ডলার। পরবর্তী সময়ে ২০১৫ সালে ফেব্রুয়ারি মাসে সিটিইএক্সআইসি এবং বিজেএমসি যৌথভাবে একটি সম্ভাব্যতা যাচাই করে একটি রিপোর্ট তৈরী করে। সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের প্রতিবেদন অনুযায়ী বিএমআরই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে ২ লাখ ৭৫ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন উন্নতমানের প্রচলিত ও বহুমুখী পাটপণ্য উৎপাদিত হবে।
বর্তমানে ২৪টি পাটকলের মোট বাৎসরিক উৎপাদন ক্ষমতা ৩ লাখ ৪৫ হাজার মেট্রিক টন। আর প্রকৃত বাৎসরিক উৎপাদন ২ লাখ ৮ হাজার ৬৪২ মেট্রিক টন। বর্তমানে ২৪টি পাটকলে চট, বস্তা প্রচলিত পণ্য উৎপাদন হচ্ছে। এ সকল পাটজাত পণ্যের আন্তর্জাতিক বাজার মূল্য উৎপাদন খরচের অর্ধেকেরও কম। বর্তমানে এসব পাটকল ১ হাজার ২২৮ একর ভূমির উপর প্রতিষ্ঠিত। সে তুলনায় বিএমআরই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে ৩টি পাটকলের ৫৩.৩৫ একর ভূমিতে উৎপাদন করা সম্ভব হবে উন্নতমানের ২ লাখ ৭৫ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পাটপণ্য। এ সকল পাটজাত পণ্যের উৎপাদন খরচ একদিকে কমে যাবে।
বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়, এ চুক্তি স্বাক্ষরের ফলে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বিজেএমসির রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন মিলগুলোর পুরাতন যন্ত্রপাতি পরিবর্তন করে পর্যায়ক্রমে আধুনিক চীনা প্রযুক্তির পাটপণ্য (সনাতনী পণ্য ও বহুমুখী পাটপণ্য) উৎপাদনে সক্ষম মেশিন বসানো হবে। প্রথম পর্যায়ে ৩টি মিলে সংস্কার করা হবে এবং পরবর্তীতে বিএমআরই প্রকল্পের মাধ্যমে বিজেএমসির অন্যান্য মিলগুলোও সংস্কার কার্যক্রম করা হবে। প্রথম পর্যায়ে দুই বছরের মধ্যে বিজেএমসির ৩টি মিলকে আধুনিকায়ণ করা হবে। চীনা আধুনিক প্রযুক্তিতে পাট উৎপাদনের প্রদর্শনী কেন্দ্র, পাটশিল্পের দক্ষ শ্রমিক তৈরীর জন্য কারিগরি প্রশিক্ষণ স্কুল স্থাপন, গবেষণা কেন্দ্র এবং উৎপাদিত বহুমুখী পাটপণ্য বাজারজাত ট্রেডিং হাউজ প্রতিষ্ঠা করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here