মসজিদ নির্মাণের সোনার জন্যই সেনা কর্মকর্তার মা খুন

0
3

ঢাকা (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ) : মসজিদ নির্মাণের জন্য জমানো একশ’ ভরি স্বর্ণ লুট করতেই নিজ বাসায় গলা কেটে হত্যা করা হয় সেনা কর্মকর্তার মা মনোয়ারা বেগমকে। শনিবার সকালে র‌্যাব ১ এর কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-১ অধিনায়ক লে. কর্নেল তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ এ তথ্য জানান।
তিনি জানান, ২ জুন শনিবার গভীর রাতে উত্তরা ৯ নম্বর সেক্টরের ১ নম্বর রোডের নিজ বাড়ি থেকে মনোয়ারা সুলতানার (৬৪) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
নিহত মনোয়ারা মৃত ডা. আবু মোহাম্মদ ইউসুফের স্ত্রী। তার ৩ ছেলের মধ্যে বড় ছেলে মেজর (অব.) ইকবাল ইবনে ইউসুফ অস্ট্রেলিয়ায় ও ছোট ছেলে আরমান ইবনে ইউসুফ আমেরিকায় থাকেন। মেজ ছেলে কর্নেল খালেদ বিন ইউসুফ চট্টগ্রাম সেনানিবাসে কর্মরত।
মনোয়ারার ভাই মির্জা আজম বেগ জানান, তার বোন দীর্ঘদিন স্বামীর সঙ্গে সৌদি আরবে ছিলেন। সেখানে থাকা অবস্থায় অনেক স্বর্ণালঙ্কার কিনেছিলেন। একটি মসজিদ বানানোর ইচ্ছা ছিল তার। এর ব্যয় নির্বাহের জন্য ওই স্বর্ণগুলো ব্যবহারের ইচ্ছা ছিল। কয়েক বছর ধরে তিনি আরো স্বর্ণ জমাচ্ছিলেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত প্রায় ১০০ ভরি স্বর্ণ জমিয়েছেন তিনি।
র‌্যাব ১ এর অধিনায়ক জানান, গত ৪ জুন ঘটে যাওয়া এ হত্যাকাণ্ডের দিনই ভাড়াটিয়া লায়লা আক্তার লাবণ্যকে আটক করা হয়। আজ দারোয়ান গোলাম নবী ওরফে আবু ওরফে রবিকে আটক করা হয়েছে।
জিজ্ঞাসাবাদে আটকরা জানায়, মানোয়ারা পঞ্চম তলা ওই বাড়ির দ্বিতীয় তলার ফ্ল্যাটে থাকতেন। তার দেখভালের জন্য একজন গৃহকর্মীও সেখানে থাকতেন। কিন্তু হত্যাকান্ডের ৩-৪ দিন আগে থেকে ওই নারী অনুপস্থিত ছিলেন। বুয়ার অনুপস্থিতিতে ওই বিল্ডিংয়ের ভাড়াটিয়া লাবণ্য মনোয়ারাকে খাবার দিতেন। ঘটনার দিন রাতেও তিনি খাবার দিতে ওই বাসায় প্রবেশ করেন। এসময় তার সাথেই ছিলেন দারোয়ান রবি। তারা দুজন মিলে প্রথমে মানোয়ারার শ্বাসরোধ করেন। পরে মৃত্যুর বিষয়ে নিশ্চিত হতে মরদেহ সোফায় বসিয়ে গলায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করেন।
র‌্যাব জানায়, খুনিরা হত্যার পর স্বর্ণের জন্য বাসার বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালিয়েছে- এমন আলামত পাওয়া গেছে। তবে তারা কোনো স্বর্ণ পায়নি। কারণ, সেগুলো ব্যাংকের ভল্টে রাখা ছিল।
এদিকে, উত্তরা (পশ্চিম) থানার উপপরিদর্শক মামুন মিয়া জানান, নিহতের গলা কাটা ছিল। এ ছাড়া থুতনি ও গালে কয়েকটি আঘাতের চিহ্ন ছিল। বাসার ড্রয়িং রুমে সোফায় হোলানো অবস্থায় তার লাশ পাওয়া যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here