সম্প্রসারন হচ্ছে দুর্ঘটনা প্রবন নীলফামারী-জলঢাকা সড়ক

0
4

নীলফামারী (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ) : অবশেষে চরম ভোগান্তির লাঘব হতে যাচ্ছে নীলফামারী-জলঢাকা সড়কে চলাচলকারী বিভিন্ন যানবাহনসহ সাধারন মানুষের। মাত্র ১২ ফুট প্রস্থের এ সড়কটিকে ১৮ ফুটে উন্নীত করা হচ্ছে। রোববার নীলফামারী-১ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর এ সড়কের প্রসস্থকরন কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন।
নীলফামারী সড়ক বিভাগ জানিয়েছে, নীলফামারী-জলঢাকা সড়কটি অত্যান্ত ব্যস্ততম সড়ক। এ সড়কটি কিশোরগঞ্জ উপজেলা সদর হয়ে রংপুর এবং জলঢাকা-ডালিয়া হয়ে লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দরের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করেছে। দীর্ঘদিন থেকে মাত্র ১২ ফুট প্রস্থের এ সড়ক দিয়ে বাস, ট্রাক, অটোবাইক, মোটর সাইকেল, অটোরিক্সা, রিক্সা, বাই-সাইকেল, ভটিভটিসহ মানুষজন জীবনের ঝুকি নিয়ে চলাচল করতো। গুরুত্বপুর্ন ও ঝুকিপুর্ন এ সড়কে সার্বক্ষনিক দুর্ঘটনার আশঙ্কা নিয়ে চলাচল করতো যানসহ পথচারী। দীর্ঘদিনে এ সড়কে ঘটে যাওয়া অসংখ্য দুর্ঘটনায় প্রাণ গেছে অনেকের। অনেকেই হাত-পা ভেঙ্গে বরন করেছে পঙ্গুত্ব। সড়কটি প্রসস্থ করনের দীর্ঘদিনের দাবী ছিল এলাকাবাসীর। এ সড়ক প্রসস্থকরনের উপর বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার অসংখ্য প্রতিবেদন প্রচারিত হয়েছে।
মাত্র ২২কিলোমিটার দৈর্ঘের এ সড়কে ১১কিলোমিটার করে দু’জন ও চারটি সেতুর জন্য একজন ঠিকাদার নিয়োগ করা হচ্ছে। বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৬ কোটি টাকা।
সড়ক সম্প্রসারনে দু’টি গ্রুপের মধ্যে একটি গ্রুপকে ১১ কিলোমিটার কাজের জন্য খুলনার মোজাহার এন্টারপ্রাইজের সাথে চুক্তি হয়েছে। যার চুক্তি মুল্য ১৪কোটি টাকা। অবশিষ্ট ১১কিলোমিটার সড়ক সম্প্রসারন ও চারটি সেতু নির্মাণে এখনও ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়নি।
নীলফামারী সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী একেএম হামিদুর রহমান বলেন, এ সড়কটি সম্প্রসারিত হলে নীলফামারীবাসীর দীর্ঘদিনের একটি দাবী পুরন হবে। এতে একদিকে কমবে দুর্ঘটনা অপরদিকে যান ও মানুষজন চলাচল করতে পারবে স্বাচ্ছন্দে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here