আজ: রবিবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৯ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, শরৎকাল, ৫ই মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী, সন্ধ্যা ৬:১৪

এখনই প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে

মো: শামীম মিয়া (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ): নারীর প্রতি সহিংসতা ও ধর্ষণের মত গহিত অপরাধ আশস্কাজনক হারে বেড়েই চলছে। ধর্ষণ এখন নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আজকে নারী ও শিশুরা কোথাও নিরাপদে নেই, এমনকি নিজ পরিবারেও। দৈনিক পত্রিকায় চোখ পড়লেই অহরহ দেখা যায় ধর্ষণের মত গহিত ঘটনার বাস্তব চিত্র। নি¤œবিত্ত থেকে শুরু করে উচ্চবিত্ত সমাজের সব স্তরেই নারী কোন না কোন ভাবে র্নিযাতিত হচ্ছেন। কুপ্রস্তাব বা বিয়েতে রাজি না হলেই নারীকে ধর্ষণ করা হচ্ছে, ছুড়ে মারা হচ্ছে এসিড। ধর্ষক নামের নরপশুদের হাতে রক্ষা পাচ্ছে না আড়াই বছরের শিশু থেকে ৫৫ বছরের নারী। এসব ঘটনা জাতির জন্য লজ্জাজনক হলেও নেই যেন এর প্রতিরোধ, প্রতিকার।
গুনিজনরা বলেন, অনিয়ন্ত্রিত যৌন কামনার প্রভাবে আমাদের মধ্যে ধর্ষণ, জেনা, পরকীয়া, ইত্যাদির প্রবনতা বাড়ছেই। এমন কী শিক্ষাগত যোগ্যতাও এই মানসিকতা বদলাতে পারেনি। তা না হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের মত স্থানে শিক্ষকের দ্বারা ছাত্রী, ডাক্তারের দ্বারা ডাক্তারনী ধর্ষিত হয় কী করে? খুব কষ্ট পাই বুকটা ফেটে যায় শিশু ধর্ষণের ঘটনা শুনলে। মনে হয় কোথায় বাস করছি আমরা ? বনের পশুদের তাও পশুত্ব আছে, আমরা মানুষ, আজ যেন আমাদের মনুষ্যত্ব উধাও হয়ে যাচ্ছে।
বিভিন্ন সংগঠনের পরিসংখ্যানগুলো আজ জাতিকে ভাবিয়ে তুলছে। বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরামের তথ্য অনুযায়ী ২০১৬ সালের জানুয়ারী থেকে সেপ্টেম্বর পযন্ত ৯ মাসে ৩২৫ জন শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ৩২৫ জন শিশুর মধ্যে ৪৮ জন শিশু গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। ৩১ জন প্রতিবন্ধি বা বিশেষ শিশু ৫ জন গৃহকর্মী শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এদের মধ্যে ১৫ জন শিশুকে হত্যা করা হয়েছে। ধর্ষনের চেষ্টা করা হয় ৫৪ জন শিশুকে অথাৎ প্রতিমাসে ৩৫ জন শিশু ধর্ষনের শিকার হয়েছে। আবার বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ প্রকাশ করেছে ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে মোট ৪৪৬ জন নারী ও কন্যা শিশু র্নিযাতনের শিকার হয়েছে।
প্রতিবেদন মতে, গত সেপ্টেম্বর মাসে ৯১ টি ধর্ষণের ঘটনাসহ মোট ৩৭৪ টি নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে। অথাৎ অক্টোবর মাসে ধর্ষণের ঘটনা বেড়েছে ২৪টি, মোট নির্যাতনের ঘটনা বেড়েছে ৭২ টি। মহিলা পরিষদ মনে করে প্রকৃত সংখ্যা আরো বেশি। অক্টোবর মাসে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে ১১৫ টি। তার মধ্যে গণধর্ষণের শিকার ২৩ জন নারী ও কন্যাশিশু। ধর্ষণের পর হত্যা করা হয় ৪ জনকে। এছাড়া ধর্ষণের চেষ্টা করা হয় ২৪ জন নারী ও কন্যাশিশুকে।
বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরামের তথ্য অনুযায়ী ২০১৫ সালে ৫২১ জন শিশু ধর্ষণের শিকার হয়। এদের মধ্যে ৯৯ জন শিশু গণধর্ষণের শিকার হয়। ৩০ জনকে ধর্ষনের পর হত্যা করা হয়। এবং ৪ জন শিশু অপমান সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করে। ২০১৪ সালে ১৯৯ জন শিশু ধর্ষণের শিকার হয়। ২১ জন শিশুকে ধর্ষনের পর হত্যা করা হয়। এবং ২৩ জন শিশু অপমান সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করে। ২০১৩-২০১২ সালে যথাক্রমে ১৭০ এবং ৮৬ জন শিশু ধর্ষণের শিকার হয়।
আবার, ওয়েব সাইট ঘেটে দেখা যায়, বাংলাদেশে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের হার ভারতের চেয়ে বেশি। বাংলাদেশে সারা বছর ধর্ষণের ঘটনা নারী নির্যাতনের শতকরা ১৮ ভাগ যা ভারতে ৯.৫ ভাগ । এছাড়া ঢাকায় সারা বছরে ধর্ষনের ঘটনা মোট নারী নির্যাতনের শতকরা ২০.৪৬ ভাগ যা নয়াদিল্লিতে ৯.১৭ ভাগ।
এসব পরিসংখ্যান জরিপ সাধারণ মানুষকে ভাবিয়ে তুলছে। জরিপ, পরিসংখ্যান তৈরীর সংগঠনগুলোই বলছে প্রকৃত সংখ্যা আরো অনেক বেশি। আমার মতে দেশে মনুষ্যত্বের অপমৃত্যু হচ্ছে । জন্ম নিচ্ছে মানুষের মনে ভয়ানক এক প্রকার পশুত্ব। আজ দেশে কেমন যেন অস্থিরতা বিরাজ করছে। আস্থাহীন হচ্ছে মানুষ দেশের আইন ও প্রশাসনের উপর । অনেকে মামলা করতে চায়না দ্বিতীয় বার হামলার ভয়ে, নির্যাতিত ধর্ষিত হয়েও মুখ বুজে সহ্য করে অসংখ্য নারী ও কন্যাশিশু। আজ আমাদের সেই নরপশুদের বিরুদ্ধে তুলতে হবে জোরালো প্রতিবাদ । সেই সঙ্গে সচেতন নাগরিকদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে অপরাধের বিরুদ্ধে, গড়ে তুলতে হবে শক্ত প্রতিরোধ। সর্বপরি আমাদের মনে রাখতে হবে ধর্ষণের প্রতিবাদ করা যেমন আমাদের নৈতিক দায়িত্ব, তেমনী এই বিষয়ে সচেতনতা তৈরী করা আমাদের কর্তব্য। ধর্ষকদের পক্ষে কেউ যদি না লড়েন সেটা হবে অন্যতম একটি প্রতিরোধ। ধর্ষণ রোধে আমাদের মন মানসিকতা ঠিক করতে হবে। কে ক্ষমতাবান ক্ষমতাধর তাদের সবাইকে আইনের চোখে একজন সাধারন মানুষ হিসাবে রাখতে হবে। দেশের আইন শক্তিশালি করতে হবে। একদম প্রাথমিক পর্যায় থেকে সুষ্ঠ ভাবে ধর্মীয় শিক্ষা সবার জন্য বাধ্যতামূলক করতে হবে। কেন না যৌন ব্যভিচার সর্ব যুগে সর্ব ধর্মমতে নিন্দানীয়। নিকৃষ্ট, পাপাচার প্রচলিত কুশিক্ষা অনৈতিক লোভ লালসা সংস্কৃতি আর পদ্ধতি করন কৃত র্দুনীতির অবাধ ক্ষেত্রকে সম্পূন গুড়িয়ে দিতে হবে। প্রতিষ্ঠা করতে হবে সভ্য-ন্যায় ভিত্তিক কল্যাণ মুখি সমাজ। সভ্য সুন্দর সমাজ মানব সভ্যতার বিনির্মানে এক সৃষ্টির্কতার প্রতি বিশ্বাস সুশিক্ষা সৎ নৈতিকতা সমাজিক মূল্যবোধের চর্চার বিষয়গুলি অপরিহার্য । আর সংঘঠিত অপরাধ গুলির ন্যায় বিচার ও অপরাধীর দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে সরকারকে। কারণ, অপরাধীর শাস্তি না হওয়া অপরাধ বিস্তারের অন্যতম প্রধান কারণ। সততার সাথে নিজ নিজ র্ধম ও চর্চা মানুষকে সর্বপ্রকার অসভ্য-অনাচার, নিকৃষ্ঠ, পাপাচার থেকে মুক্তি দিতে পারে।

লেখক
শিক্ষার্থী জুমারবাড়ী আর্দশ কলেজ, জুমারবাড়ী, সাঘাটা, গাইবান্ধা

amrashishu7@gmail.com

Share

Author: 24bdnews

4619 stories / Browse all stories

Related Stories »

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ফেসবুকে আমরা »

ছবি সংবাদ »

নিউজ আর্কাইভ »

MonTueWedThuFriSatSun
    123
11121314151617
252627282930 
       
 123456
28293031   
       
     12
3456789
10111213141516
24252627282930
31      
   1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930  
       
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031    
       
     12
17181920212223
24252627282930
       
  12345
2728     
       
      1
23242526272829
3031     
   1234
262728293031 
       
   1234
12131415161718
       
      1
3031     
29      
       
      1
16171819202122
30      
   1234
12131415161718
19202122232425
262728293031 
       
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930    
       
     12
17181920212223
24252627282930
31      
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
       

সবশেষ সংবাদ »

সারাদেশ »