হারের পর মুশফিক যা বললেন

0
4

ক্রীড়া ডেস্ক (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ): অস্ট্রেলিয়ায় প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে সিডনি সিক্সার্সের বিপক্ষে বৃষ্টি আইনে ৭ উইকেটে জয় পায় বাংলাদেশ।  শুক্রবার দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে সিডনি থান্ডারের বিপক্ষে। এদিন অবশ্য ব্যাটিং ব্যর্থতায় জয় পায়নি বাংলাদেশ। হেরে গেছে ৬ উইকেটে।

আজ অবশ্য দলের গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় মাঠে নামেননি। তরুণ খেলোয়াড়দের নিয়ে মাঠে নামে বাংলাদেশ। তবে শুরু থেকে তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে শুরুতেই উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে যায় বাংলাদেশ।

শেষদিকে নুরুল হাসান সোহান ও শুভাগত হোমের ব্যাট ভর করে ১২২ রানের সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ।

ম্যাচ শেষে মুশফিকুর রহিমের কাছে দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক বলেন, ‘সিডনি থান্ডার ম্যাচটি জিতে নিয়েছে। তবে আমি মনে করি এই মাঠে আমরা ২০ রান কম করেছি। যদিও এই মাঠে ব্যাট করা কিছুটা কঠিন। তারপরও শুরুতেই আমাদের ব্যাটসম্যানদের উপর সিডনি থান্ডারের বোলাররা চাপ তৈরি করে। যদিও এই ম্যাচে আমাদের দলের বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় খেলেননি। তারা যদি খেলত তাহলে ফল হয়তো ভিন্ন হতে পারত। তবে আমি মনে করি আমাদের ব্যাটসম্যানরা শুরু থেকেই তাড়াহুড়ো করেছে। তাতে শুরুতেই আমরা অনেক উইকেট হারিয়ে বসি। সেখান থেকে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারিনি। তারপরও সোহান এবং শুভাগত বেশ ভালো খেলেছে এবং আমাদের বোলাররাও এই মাঠে ভালো বল করেছে।’

সিডনি থান্ডারের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, এই ম্যাচে সিডনির বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় খেলেননি। ওয়াটসন খেলেননি। ভালো কিছু বিদেশি খেলোয়াড়রা খেলেননি। তারপরও আমি মনে করি তারা দারুণ দল। গেল বছর তারা বিগ ব্যাশের শিরোপা জিতেছে। আসন্ন মৌসুমের জন্য তাদের শুভকামনা জানাচ্ছি। আশা করছি এবারও তারা ফাইনাল খেলবে এবং শিরোপা অক্ষুন্ন রাখবে।’

প্রস্তুতি ম্যাচ হলেও মাঠে প্রচুর দর্শক সমাগম হয়েছে। সে বিষয়ে মুশফিক বলেন, ‘এটা আসলে খুবই ভালো লাগার মতো একটি বিষয়। এর আগে আমরা যখন এখানে বিশ্বকাপ খেলতে এসেছিলাম তখনও অনেক প্রবাসী বাংলাদেশি মাঠে এসে আমাদের সমর্থন জুগিয়েছিলেন। তাদের সামনে খেলতে আমাদেরও বেশ ভালো লাগে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে আজ অবশ্য আমরা জিততে পারিনি। আশা করছি নিউজিল্যান্ডে আমরা তাদের কিছু জয় উপহার দিতে পারব।’

নিউজিল্যান্ড সফরের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এই সফরটা আমাদের জন্য এক প্রকার চ্যালেঞ্জ। গেল কয়েক বছর ধরে ঘরের মাঠে আমরা বেশ ভালো ক্রিকেট খেলছি। এবার দেশের বাইরে ভালো খেলার চ্যালেঞ্জটা নিতে হচ্ছে আমাদের। যদিও এই সফরটা সহজ হবে না, সে কারণেই আমরা এখানে আগেভাগে এসেছি। যাতে করে কন্ডিশনের সঙ্গে খাপ খাওয়াতে পারি। এখানে ছেলেরা বেশ ভালো করছে। আশা করছি এই অভিজ্ঞতা নিউজিল্যান্ডে কাজে লাগিয়ে ভালো কিছু করতে পারবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here