সিদ্ধিরগঞ্জে আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে ৪০০ দোকানের ভাড়া জোরপূর্বক আদায়ের অভিযোগ

0
5

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ):  নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াসিনের বিরুদ্ধে একটি মার্কেটের চারশ দোকান থেকে জোর পূর্বক গত এক বছর যাবৎ ভাড়া আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড খোদ্দঘোষ পাড়ায় অবস্থিত মিতালী সুপার মার্কেট থেকে এ ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। হাজী ইয়াছিন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হওয়ায় দোকান মালিকরা ভাড়াটেদের কাছ থেকে ভাড়া নিতে পারছেন না। আর ভাড়াটিয়ারা ব্যবসা করার জন্য হাজী ইয়াছিনের পাঠানো লোকজনের কাছে ভাড়া দিতে বাধ্য হচ্ছেন। এতে করে দোকান গুলোর প্রকৃত মালিকরা গত এক বছর যাবৎ ভাড়া থেকে বঞ্চিত। ঘটনার প্রতিকার জানিয়ে মার্কেটের ব্যবসায়িরা সিটি করপোরেশনের মেয়র, নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার এবং র‌্যাব-১১’র কাছে লিখিত আবেদন করেছেন। এরমধ্যে গত ৫ মার্চ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর কাছে এবং গতকাল শনিবার পুলিশ সুপার এবং র‌্যাব-১১’র কাছে লিখিত অভিযোগ করেন ব্যবসায়িরা।
হাজী ইয়াছিন মিয়া নারায়ণগঞ্জের আলোচিত ৭ খুন মামলার এজাহারভুক্ত আসামী ছিলেন। পরে তিনি চার্জশীট থেকে অব্যাহতি পান। ৭ খুনের ঘটনার পর ইয়াছিন সস্ত্রীক বিদেশে পলাতক ছিলেন। মামলার চার্জশীট দেবার পর তিনি দেশে ফিরে আসেন।
অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চেয়ে যোগাযোগ করা হলে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াছিন মিয়া বলেন, তিনি জনৈক করম আলীর ছেলে মাসুম ও বাদশার কাছ থেকে আমমোক্তারনামা বলে মার্কেটের মালিক হয়েছেন। তিনি তার দোকানের ভাড়া তুলছেন। এর বেশি কিছু বলতে তিনি রাজী হননি।
মিতালী মার্কেটের দোকান মালিকরা তাদের অভিযোগে উল্লেখ করেন, তারা মিতালী সমিতির মাধ্যমে মার্কেটে দোকান ক্রয় করেন। দোকান গুলো ভাড়া দিয়ে ভোগদখল করছিলেন। দোকানগুলো মিতালী মার্কেটের ৮ ও ১৩ নম্বর ভবনে অবস্থিত। গত বছরের ১০ ফেব্রুয়ারি দোকান মালিকরা ভাড়া আনতে গেলে তাদের ভাড়াটিয়ারা জানায় ২০/২৫ জন লোক এসে বলে গেছে মার্কেটের ৮ ও ১৩ নম্বর ভবনের মালিক তারা। ভাড়াটিয়ারা যেন তাদের কাছে ভাড়া দেই। ভাড়া নেওয়ার জন্য যাদের পাঠানো হয়েছে তারা হাজী ইয়াছিনের লোক।
এ ঘটনা জানিয়ে দোকান মালিকরা মার্কেট সমিতির সভাপতি রফিকুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বিষয়টি মিমাংসা করে দেবার কথা বললেও তা করতে ব্যর্থ হন। পরে বিষয়টি জানিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়।
মিতালী মার্কেট সমিতির সভাপতি রফিকুল ইসলাম বলেন, মার্কেটের দোকান মালিকদের অভিযোগ সত্য। তাদের মালিকানাধীন দোকানের ভাড়া হাজী ইয়াছিনের লোকজন তুলে নিচ্ছে। হাজী ইয়াছির দাবি করেছেন, তিনি জনৈক কমর আলীর ছেলেদের কাছ থেকে আমমোক্তারনামা বলে ওই মার্কেটের মালিক হয়েছেন। তিনি নাকি তার দোকানের ভাড়া নিচ্ছেন।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় দোকান মালিকরা যে অভিযোগ দিয়েছেন তার তদন্ত করছেন থানার এসআই সামসুল ইসলাম। তিনি সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াছিনের সুরে সুর মিলিয়ে বলেন, হাজী ইয়াছিন আমমোক্তারনামা বলে মার্কেটের মালিক হয়েছেন। আমি মার্কেট সমিতির সভাপতি রফিকুল ইসলাম, আমমোক্তারনামা বলে মালিক হাজী ইয়াছিন, মার্কেটের প্রকৃত মালিক কমর আলীর ছেলে মাসুম ও বাদশাকে ডেকেছি বিষয়টি মিমাংসার জন্য। সবাই আসতে রাজী হলেও মার্কেট সমিতির সভাপতি রফিকুল ইসলাম আসছেন না। রফিকুল ইসলাম লোক ভাল না।
এসআই সামসুল ইসলাম আরো বলেন, তিনি তদন্তে জানতে পেরেছেন কমর আলীর ছেলেরা মামলায় জিতে মার্কেটের মালিক হয়েছেন। তারাই হাজী ইয়াছিনকে আমমোক্তার নিযুক্ত করেছেন। মামলায় জিতলে উচ্ছেদ মামলা না করেই কেন এভাবে মার্কেটের দখল নেওয়া হলো জানতে চাইলে এসআই সামসুল বলেন, তারা বর্তমান মালিকদের দলিল বাতিল মামলা করে মার্কেটের দখল নিয়েছেন। দলিল বাতিল মামলার রায় হলে উচ্ছেদ মামলা করবেন। তিনি আরো বলেন, আপনারাতো জানেন, জমি সক্রান্ত বিষয়ে পুলিশের তেমন কিছুই করার থাকে না।
জানতে চেয়ে যোগাযোগ করা হলে নাসিক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, অভিযোগ পেয়ে হাজী ইয়াছিনকে ডেকে পাঠিয়েছি বিস্তারিত জানার জন্য। তবে হাজী ইয়াছিন এখনো দেখা করেননি।
যোগাযোগ করা হলে র‌্যাব-১১’র  ল্যান্স নায়েক আলমগীর হোসেন বলেন, ব্যবসায়িদের দেওয়া অভিযোগ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here