ছেলেকে চাকরি দেয়ায় কারাদণ্ডের মুখোমুখি সৌদি মন্ত্রী

0
5

আন্তর্জাতিক ডেস্ক (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ) : ক্ষমতার অপব্যবহার করে ছেলেকে মন্ত্রণালয়ের চাকরি দেয়ার অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন সৌদি আরবের বেসামরিক কল্যাণ বিষয়ক মন্ত্রী খালেদ আল-আরাজ। শনিবার সৌদি বাদশাহ এক ডিক্রি জারি করে মন্ত্রীকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন।

দেশটির আইনজীবী ও আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ক্ষমতার অপব্যবহার করার কারণে ৩ থেকে ১০ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে সাবেক এই মন্ত্রীর। তারা বলছেন, গত ৫৮ বছরের মধ্যে এই প্রথম দেশটির কোনো মন্ত্রী বিচারের মুখোমুখি হচ্ছেন।

মন্ত্রীর বিরুদ্ধে তার এক ছেলেকে দেশটির পৌর ও পল্লী উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ এক পদে ২১ হাজার সৌদি রিয়াল বেতনে নিয়োগ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। মন্ত্রীর ছেলের শিক্ষাগত যোগ্যতা মাত্র মাধ্যমিক পাস।

মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ অথবা জ্যেষ্ঠ পরামর্শক পদে এই প্রথম সবচেয়ে কম বয়সী হিসেবে ৩৩ বছরের নিচের কাউকে নিয়োগ দেয়া হয়। এমনকি মেডিকেল পরীক্ষার মুখোমুখিও হতে হয়নি মন্ত্রীর পুত্রকে।

দেশটির উচ্চ আদালতের দুই বিচারক ও তিন মন্ত্রীর সমন্বয়ে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির জ্যেষ্ঠ মন্ত্রীর নেতৃত্বে আগামী এক মাস ধরে আরাজের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারের তদন্ত চলবে। সৌদির আইন অনুযায়ী এক মাসের তদন্ত শেষে কমিটি তাদের মতামত আদালতের কাছে উপস্থাপন করবে।

আইনজীবী মোহাম্মদ আল তিমিয়াত বলেন, মন্ত্রীর বিচারের প্রক্রিয়া শুরু করতে তার বিরুদ্ধে মামলা র প্রয়োজন নেই। মন্ত্রিপরিষদের কাছে যেকোনো মন্ত্রীর বিরুদ্ধে যেকোনো নাগরিক অভিযোগ করতে পারেন; যা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে তদন্তের জন্য পাঠানো হয়।

আইনজীবী ও আইনি পরামর্শক ইব্রাহীম আল হুসাইন বলেন, যদি দোষী সাব্যস্ত হোন তাহলে সাবেক এই মন্ত্রী সরকারি যেকোনো ক্ষেত্রে নিষিদ্ধ হবেন অথবা কোনো কোম্পানি অথবা প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য হতে পারবেন না।

সাদ আল-থুওয়ানি নামে এক চাকরিপ্রার্থী মন্ত্রীর ছেলেকে নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগ এনেছেন। এ অভিযোগের পর অনেকেই হুমকি দিলেও তিনি ভীত নন বলে জানিয়েছেন। সৌদি এই চাকরিপ্রার্থীর দাবি, যোগ্যতাসম্পন্ন ২০ হাজারেরও বেশি আবেদনকারীর বাইরে থেকে নিজের ছেলেকে নিয়োগ দিয়েছেন মন্ত্রী।

সূত্র : সৌদি গ্যাজেট।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here