সোনারগাঁয়ে পুলিশের সাথে কথিত বন্দুক যুদ্ধে নিহত ১ গ্রেপ্তার ৬

0
7

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ): নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক ডাকাত নিহত হয়েছেন। এসময় পুলিশের দুই সদস্যসহ ৩ জন আহত হয়। নিহত ডাকাত সদস্যের নাম মোবারক হোসেন (৪০)। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার ভোর রাতে উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের আষাঢ়িয়ারচর ব্রীজ এলাকায়। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্রসহ ৬ ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় সোনারগাঁও থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। নিহত মোবারক হোসেন পিরোজপুর ইউনিয়নের প্রতাবেরচর গ্রামের হাজী ইয়াছিন মিয়ার ছেলে। পুলিশ বলছে, নিহতের বিরুদ্ধে সোনারগাঁ থানাসহ বিভিন্ন থানায় প্রায় ১০টি মামলা হয়েছে।
সোনারগাঁ থানার ওসি মোরশেদ আলম পিপিএম জানান, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের আষাঢ়িয়ারচর ব্রীজের পশ্চিমপার্শে ১০-১২ জনের একদল ডাকাত মহাসড়কে চলাচলরত বিভিন্ন যানবাহনে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তার নেতৃত্বে উপ-পরিদর্শ আব্দুল হক সিকদার তিনটি টিম আষাঢ়িয়ারচর ব্রীজ এলাকায় অভিযান চালায়। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদল পুলিশের উপর গুলি চালায়। পুলিশও ৫ রাউন্ড পাল্টা গুলি ছুড়লে ডাকাত দল পালানোর চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের ঘিরে ফেলে। পরে ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ডাকাত মোবারক হোসেন ও বাবু ওরফে টেরা বাবুসহ ৭ ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়। ডাকাতদের সাথে গুলি বিনিময় কালে পুলিশের সহকারী উপ পরিদশর্ক এএসআই নারায়ণ চন্দ্র দাস ও পুলিশ কনস্টেবল মুমিনুর রহমান আহত হয়। আহত পুলিশ সদস্য ও ডাকাতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ডাকাত মোবারক হোসেন মারা যায়। গ্রেফতারকৃত অপর ডাকাত সদস্যরা হলেন রহমত উল্লাহ, বাবু, মো: শরীফ, রানা মিয়া, বাবু ওরফে টেরা বাবু ও মো: হৃদয়। পুলিশ আটককৃত ডাকাতদের কাছে থেকে দুটি গুলিসহ ১টি ওয়ান শুটার ৩টি ছোরা ও ১টি দা উদ্ধার করে।
গ্রেফতারকৃত রহমত উল্লাহ উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের ছয়হিস্যা গ্রামের আঃ রহমানের ছেলে। বাবু চাঁদপুর জেলার কচুয়া থানার করিয়া গ্রামের মৃত কামাল মিয়ার ছেলে, বাবু ওরফে টেরা বাবু সোনারগাঁ উপজেলার ঝাউচর গ্রামের আমানউল্লাহের ছেলে, মোঃ শরিফ সোনারগাঁয়ে কাঁচপুর ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামের মৃত মজিবুর ড্রাইভারের ছেলে, রানা মিয়া পটুয়াখালী জেলার দশমিনা থানার আলী হোসেনের ছেলে, ও মোঃ হৃদয় একই জেলার বাউফল থানার গুলবাগ গ্রামের মনির হোসেনের ছেলে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here