1. admin@bangla24bdnews.com : b24bdnews :
  2. robinmzamin@gmail.com : mehrab hossain provat : mehrab hossain provat
  3. maualh4013@gmail.com : md aual hosen : Md. Aual Hosen
  4. tanvirahmedtonmoy1987@gmail.com : shuvo khan : shuvo khan
রবিবার, ০১ নভেম্বর ২০২০, ০২:১৪ পূর্বাহ্ন

একজন বঙ্গবন্ধু নেই বলে অনেক দেশ স্বাধীন হতে পারছে না

স্টাফ রিপোর্টার (বাংলা ২৪ বিডি নিউজ):
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১৫৭

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, বাঙালির মুক্তিযুদ্ধ ছিল বাংলা ভাষাভিত্তিক জনগোষ্ঠী, বাঙালি সংস্কৃতি কেন্দ্রীক উন্নত জীবনধারী একটি দেশ প্রতিষ্ঠায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুদীর্ঘ লড়াইয়ের ফসল। স্বাধীকার প্রতিষ্ঠার জন্য এখনও পৃথিবীর বহু দেশে যুদ্ধ হচ্ছে। কিন্তু তারা সফল হতে পারছে না। কারণ তাদের একজন বঙ্গবন্ধু নেই। বঙ্গবন্ধু তার সুদীর্ঘ লড়াইয়ের মধ্যে সমগ্র দেশের মানুষকে একত্রিত করে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে সংগঠিত করেছেন।

রোববার ঢাকায় ন্যাশনাল ফ্রিডম ফাইটারস ফাউন্ডেশন আয়োজিত শতবর্ষে বঙ্গবন্ধু ২০২০ শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর মূল শক্তি ছিল এ দেশের মানুষ। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানানোর ঘৃণ্য ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল। ১৯৭৫ থেকে ১৯৯৬ এই ২১ বছর বাংলাদেশকে পশ্চাৎপদতার দিকে ধাবিত করা হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু ছিলেন দূরদৃষ্টি সম্পন্ন একজন মানুষ। আন্তর্জাতিক বিশ্বের সাথে টেলিযোগাযোগ সম্প্রসারণে ১৯৭৫ সালের ১৪ জুন বেতবুনিয়ায় তিনি ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তারই নেতৃত্বে বাংলাদেশ ১৯৭৩ সালে আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়নের সদস্যপদ অর্জন করে।

গত দশ বছরে বাংলাদেশ এবং পাকিস্তানের তুলনামূলক অর্থনৈতিক সূচক তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নে বিশ্বের বিস্ময়। গত দশ বছরে দেশে মাথা পিছু আয় ৫৫৬ ডলার থেকে ১৯০৯ ডলারে উন্নীত হয়েছে। আগামী ৫ বছরে বাংলাদেশ কোথায় যাবে তা কল্পনাও করতে পারি না। তিনি বলেন, গড় আয়ু, মাতৃ মৃত্যুহার, শিশু মৃত্যুহারসহ অগ্রগতির প্রতিটি সূচকে গত ১১ বছরের অগ্রগতিতে বাংলাদেশ অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। বাংলাদেশ বিশ্বে আজ উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে।

মন্ত্রী বলেন, ২০২০ সালে জাতির পিতার জন্ম শতবার্ষিকী এবং ২০২১ সাল স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী। এই দুটি বছর জাতির উৎসবের বছর, উদযাপনের বছর। এই সময়ের জন্য তিনি যথাযথ কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ ও কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের উপযোগী হিসেবে নিজেদের তৈরির প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস, বাংলাদেশ কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইট কোম্পানির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ, ন্যাশনাল ফ্রিডম ফাইটারস ফাউন্ডেশনের সভাপতি ড. এসএম জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

ফেসবুকে আমরা

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.bangla24bdnews.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Customized By NewsSmart